চীনের ‘বিআরআই’ ঠেকাতে জি-সেভেনের ৬০০ বিলিয়ন ডলারের তহবিল গঠনের ঘোষণা

|

চীনের সঙ্গে টেক্কা দিতে ৬০০ বিলিয়ন ডলারের তহবিল ঘোষণা করেছে বিশ্বের অর্থনৈতিক শক্তিধর দেশগুলোর জোট জি-সেভেন। ২০২৭ সালের মধ্যে বিনিয়োগের অর্থ জমা করতে সম্মত হয়েছে সদস্য রাষ্ট্রগুলো। খবর আল জাজিরার।

জার্মানির ব্যাভেরিয়া শহরে চলা জি-সেভেন নেতাদের বৈঠকে এ ঘোষণা আসে। গতকাল রোববার (২৬ জুন) থেকে শুরু হয় এ বৈঠক। বৈঠকের উদ্বোধনী ভাষণেই আসে ‘বৈশ্বিক অবকাঠামো এবং বিনিয়োগ অংশীদারিত্ব- পিজিআইআই’ এর ঘোষণা। এতে সার্বিকভাবে অর্থনৈতিক কল্যাণ হবে, এমন দাবি মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের।

জো বাইডেন বলেন, আজ আনুষ্ঠানিকভাবে বৈশ্বিক অবকাঠামো এবং বিনিয়োগ অংশীদারিত্ব শুরু করলো জোট। আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে ২০০ বিলিয়ন ডলারের মূলধন বিনিয়োগ করবে যুক্তরাষ্ট্র। ২০২৭ সালের মধ্যে সমষ্টিগতভাবে তৈরি করা হবে ৬০০ বিলিয়ন ডলারের তহবিল। টেকসই উন্নয়ন-স্বাস্থ্য নিরাপত্তা-ডিজিটাল যোগাযোগ-পরিবেশ ও জ্বালানির সুরক্ষায় কাজে লাগানো হবে সেই অর্থ।

ট্রিলিয়ন ডলার খরচ করে বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভ (বিআরআই) বাস্তবায়ন করছে চীন। বিশ্বের ওপর দেশটির একচেটিয়া প্রভাব বিস্তার কমাতেই জি-সেভেনের নতুন এ উদ্যোগ।

এদিকে, ইউরোপীয় জোটও নিশ্চিত করেছে আগামী পাঁচ বছরে ৩০০ বিলিয়ন ইউরো সংগ্রহ করবে।

ইউরোপিয়ান কমিশনের প্রেসিডেন্ট উরসুলা ভন দের লিয়ঁ বলেন, জোটের তহবিলে টিম ইউরোপ ২০২৭ সালের মধ্যে সরকারি ও বেসরকারি উৎস থেকে ৩০০ বিলিয়ন ইউরো জমা করবে। যা অবকাঠামো উন্নয়ন এবং স্বাস্থ্য বিষয়ক কাঠামো নির্মাণে ব্যয় হবে। এর মাধ্যমে জীবনমান হবে উন্নত। তৃণমূলের জনগোষ্ঠী হবে লাভবান।

তবে, সবকিছু ছাপিয়ে আলোচনায় ইউক্রেন যুদ্ধ পরিস্থিতি। জোট নেতারাও ইঙ্গিত দিচ্ছেন, রাশিয়াকে ঠেকাতে আসতে পারে বড় ঘোষণা। তাছাড়া, কিয়েভ প্রশাসনকে আরও শক্তিশালী সমরাস্ত্র পাঠানোর পরিকল্পনা রয়েছে।

জার্মানির চ্যান্সেলর ওলাফ শোলৎজ বলেন, ইউক্রেন এতোটা আন্তর্জাতিক সমর্থন পাবে, সেটা কল্পনাতেও আনেনি পুতিন। বর্তমানে এটাই তার মূল মাথা ব্যাথা। তবুও বর্বরতা চালিয়ে যাচ্ছেন রুশ প্রেসিডেন্ট। অবশ্য, দেশরক্ষায় ইউক্রেনীয়দের সাহসিকতা প্রশংসনীয়। তাদের গণতন্ত্র-স্বাধীনতা এবং মূল্যবোধ রক্ষায় সবসময় পাশে থাকবে যুক্তরাষ্ট্র ও জার্মানি।

আগামীকাল মঙ্গলবার শেষ হবে ৩ দিনের বার্ষিক সম্মেলন। এরমাঝেই দ্বিপাক্ষিক বৈঠকগুলোয় পারস্পরিক সংকটগুলোর ব্যাপারে আলোচনা করবেন জি-সেভেন নেতারা।

/এমএন





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply