পদ্মা সেতুর উদ্বোধন; টাঙ্গাইল জেলখানায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান

|

পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষে টাঙ্গাইল জেলা কারাগারে উৎসবের আমেজ।

স্টাফ করেসপনডেন্ট, টাঙ্গাইল:

পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষে টাঙ্গাইল জেলা কারাগারেও উৎসবের আমেজ। এই ঐতিহাসিক দিনটি আরও স্মরণীয় করে রাখতে সকল শ্রেণী পেশার মানুষের আনন্দের পাশাপাশি টাঙ্গাইল জেলখানার আসামিদের জন্য উন্নত মানের খাবারসহ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছেন টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসন।

জেলে বসেও পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আনন্দ উপভোগ করতে পেরে খুশি জেলখানায় থাকা মানুষেরা। এ উপলক্ষে টাঙ্গাইল জেলখানায় বাঁধভাঙ্গা উৎসবে মেতেছে আসামিরাও।

নানা আলোচনা সমালোচনার অবসান ঘটিয়ে আজ বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে সগৌরবে দাড়িয়ে আছে পদ্মা সেতু। কোন বাধাই দমিয়ে রাখতে পারেনি পদ্মা সেতুর নির্মাণ কাজ। আজ সেই পদ্মা সেতুর উদ্বোধনে দক্ষিণাঞ্চলের ২১ জেলার মানুষসহ সারাদেশের আপামর জনসাধারণ আনন্দে মাতোয়ারা। ঐতিহাসিক পদ্মা সেতুটি দেখতে দেশের নানা প্রান্ত থেকে মানুষ ছুটে গেছেন পদ্মা পারে। জেলায় জেলায় চলছে উৎসব।

ঠিক এমন পরিস্থিতিতে জেলখানায় থাকা মানুষগুলো যেন দেশের ঐতিহাসিক এই দিনে আনন্দ থেকে বাদ না পরে এমন চিন্তা করে টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসক ছুটে গেছেন জেলখানায়। ব্যবস্থা করেছেন উন্নত মানের খাবার এবং বিনোদনের জন্য নাচ-গান। খাবার বিতরণ শেষে নিজেও জেল সংশ্লিষ্টদের সাথে বসে খাবার খেয়েছেন এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ করেছেন।

জেলে বসেও পদ্মা সেতুর ঐতিহাসিক এই দিনের আনন্দ উপভোগ করতে পেরে খুশি জেলখানায় থাকা মানুষজন। প্রাণভরে প্রধান মন্ত্রীকে দোয়া করছেন তারা।

টাঙ্গাইল পুলিশ সুপার সরকার মোহাম্মদ কায়সার জানান, আজ বাংলাদেশের মানুষের জন্য বিশেষ দিন। সকলেই এই দিনে আনন্দ উপভোগ করুক এটাই প্রত্যাশা।

জেল সুপার আব্দুলাহ আল মামুন জানান, পুলিশ সুপার ও জেলা প্রশাসকের এমন ব্যতিক্রমী আয়োজনে আসামিদের পাশাপাশি তিনিও খুশি হয়েছেন।

টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসক ড.মোহাম্মদ আতাউল গনি বলেন, আজ সারা দেশের মানুষের কাছে একটি আনন্দের দিন। এই আনন্দ ভাগাভাগি করতেই জেলখানায় এমন আয়োজন করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, টাঙ্গাইল জেলখানায় বর্তমানে হাজতি ও কয়েদি মিলে মোট ১৪৯৩ জন আসামি রয়েছে।
এনবি/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply