যেভাবে পদ্মা সেতুর উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

|

পদ্মা সেতুর নাম ফলক উন্মোচন করছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শনিবার সকাল। সেই মাহেন্দ্রক্ষণ। বহুল প্রতীক্ষিত পদ্মা সেতু উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ১২টার কিছু আগে মাওয়া প্রান্তে সুইচ টিপে সেতুর ফলক উন্মোচন করার মধ্য দিয়ে শুরু হয় প্রধানমন্ত্রীর পদ্মা সেতু উদ্বোধন প্রক্রিয়া। সেতু উদ্বোধনের আগে মাওয়া প্রান্তে সুধী সমাবেশে বক্তব্য দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পরে সেতু নির্মাণ সংশ্লিষ্টদের সাথে ফটো সেশনে অংশ নেন প্রধানমন্ত্রী।

এরপর প্রধানমন্ত্রীর গাড়িবহর মাওয়া প্রান্তের সেতুর টোল প্লাজায় টোল পরিশোধ করেন। তিনিই প্রথম ব্যক্তি হিসেবে পদ্মা সেতুর টোল দেন। তার টোল দেয়ার মাধ্যমে সেতুর টোল প্রক্রিয়া শুরু হলো।

এরপর প্রধানমন্ত্রীর গাড়িবহর সেতু উদ্বোধনের জন্য নাম ফলকের কাছে যায়। সেখানে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম মোনাজাত পরিচালনা করেন। এ সময় প্রধানমন্ত্রীর সাথে উপস্থিত ছিলেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক বিষয়ক উপদেষ্টা মশিউর রহমান, সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন, সাবেক সেতু সচিব মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া। প্রধানমন্ত্রী মেয়ে সায়মা ওয়াজেদও এ সময় সঙ্গে ছিলেন।

সেতুর ফলক উন্মোচনের পাশাপাশি ফলকের স্থানে নির্মিত বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ম্যুরালও উদ্বোধন করেন শেখ হাসিনা। ফলক উন্মোচনের মুহূর্তে আকাশে ভেসে ওঠে নানান রঙের ধোঁয়া।

এই সময় প্রধানমন্ত্রী ‘জয় বাংলা’ ‘জয় বঙ্গবন্ধু’ স্লোগান দেন। এরপর প্রধানমন্ত্রীর গাড়িবহর আবার সেতুতে ওঠে। সেতু পাড়ি দিয়ে তিনি জাজিরা প্রান্তে রওয়ানা দেন। স্বপ্নের পদ্মা সেতু পার হওয়ার সময় সেতুর মাঝখানে প্রধানমন্ত্রী গাড়িবহর থামিয়ে কিছুক্ষণ পায়ে হেটে সেতু পরিদর্শন করেন। ঠিক একই সময় বিমান বাহিনীর বর্ণাঢ্য প্রদর্শনী উপভোগ করেন তিনি।

এরপর জাজিরা প্রান্তেও প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর ফলক উন্মোচন করেন। সাথে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ম্যুরাল উন্মোচন করেন। পদ্মা সেতু জাজিরা প্রান্তের ফলক উন্মোচনের পর প্রধানমন্ত্রী যোগ দেন সমাবেশে। পদ্মা সেতুর জাজিরা প্রান্তে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যে কখনো আবেগ, কখনো বা দৃঢ় আত্মবিশ্বাসের বহিঃপ্রকাশ ঘটে। তিনি পদ্মা সেতুকে শুধু স্থাপনা নয় এটাকে জাতির অহংকার হিসেবে আখ্যা দেন।

এনবি/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply