রংপুরে প্রাইভেট কারে চুরি হচ্ছে ছাগল, জব্দ ছাগলসহ কার

|

ছবি: উদ্ধারকৃত প্রাইভেট কার

স্টাফ করেসপনডেন্ট, রংপুর:

রংপুরে চুরির নতুন স্টাইলে ব্যবহার করা হচ্ছে প্রাইভেট কার। সংঘবদ্ধ চোর সিন্ডিকেট রাস্তায় প্রাইভেট কার থামিয়ে ছাগল চুরির পর কারে তুলে নিয়ে ভদ্রবেশে চলে যাচ্ছে। এ ধরণের একটি ঘটনায় জনতার ধাওয়ায় চোর সিন্ডিকেট পালিয়ে গেলেও উদ্ধার করা হয়েছে ৫টি ছাগল। এছাড়া জব্দ হয়েছে প্রাইভেট কার।

বুধবার (২২ জুন) বিকেলে রংপুর সদর উপজেলার সদ্যপুষ্করনী ইউনিয়নের কেশবপুর বানিয়াপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ছাগলের মালিক বাদী হয়ে থানায় মামলা করেছেন।

রংপুর মেট্রোপলিটন কোতোয়ালী থানার ওসি (তদন্ত) হোসেন আলী জানান, বুধবার বিকেলে রংপুর সদর উপজেলার সদ্যপুষ্করনী ইউনিয়নের কেশবপুর বানিয়াপাড়ায় প্রাইভেট কারে কৌশলে রাস্তা থেকে ছাগল চুরি করছিল একটি চক্র। এ সময় স্থানীয় জনতা টের পেয়ে প্রাইভেটকারকে ধাওয়া দেয়। এ সময় রাস্তায় একটি মোটরসাইকেল কারটির গতিরোধ করার চেষ্টা করলে তাকেও ধাক্কা দেয় কারটি। এরইমধ্যে সদর উপজেলা পেরিয়ে মেট্রোপলিটন কোতোয়ালী এলাকার লাকিপাড়ায় প্রবেশ করে চোর সিন্ডিকেট প্রাইভেট কারটি রেখে পালিয়ে যায়। স্থানীয় জনতা কারটি আটকে রেখে ভেতর থেকে ৫টি ছাগল উদ্ধার করে। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে কারসহ ৫টি ছাগল উদ্ধার করে মেট্রোপলিটন কোতোয়ালী থানায় নিয়ে যায়। বৃহস্পতিবার ভোর রাতে মেট্রোপলিটন কোতোয়ালী থানা থেকে কার ও ছাগলগুলো সদর কোতোয়ালী থানায় হস্তান্তর করা হয়।

সদ্যপুষ্করনী ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের মেম্বার আলমগীর হোসেন জানান, উদ্ধারকৃত ছাগলগুলোর মধ্যে ২নং ওয়ার্ডের রাজা মিয়া ও আলাউদ্দিনের ১টি, একই ওয়ার্ডের আবু বকরের ২টি এবং ৫নং ওয়ার্ডের হায়দার আলীর ১টি ছাগল রয়েছে। তিনি জানান, আগে ছাগল চুরি করতো ছিচকে চোরেরা। এখন বড় চোরেরা প্রাইভেট কারে ছাগল চুরি করছে। এটা খুবই ভয়ংকর সংবাদ। এ ঘটনায় আমরা উদ্বিগ্ন।

২টি ছাগলের মালিক সদ্যপুষ্করনী ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ডের আবুবক্কর সিদ্দিক জানান, আমরা সড়কে রাস্তাঘাটে ছাগল ঘাস খাওয়ানোর জন্য লম্বা রশি দিয়ে রেখে দেই। এখন রাস্তায় যদি বড়লোকেরা কার থামিয়ে সেই ছাগল চুরি করে নিয়ে যায়। তাহলে দেশটা গেলো কোথায়। কি হচ্ছে এসব। আমরা কোথায় যাবো। এর দৃষ্টান্তমূলক বিচার হওয়া উচিত।

সদর কোতোয়ালী থানার এসআই এহসান কবির জানান, এ ঘটনায় ছাগলের মালিক মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। মামলার প্রেক্ষিতে আমরা গাড়ির মালিক এবং সংঘবদ্ধ চোর সিন্ডিকেটকে ধরার চেষ্টা করছি। তিনি বলেন, এটি চোরদের একটি নতুন কৌশল। এরা কেউই আইনের হাত থেকে রক্ষা পাবে না।

এটিএম/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply