বহুমুখী প্রতিভাময়ী তাজিন আহমেদ

|

আজ উত্তরার একটি বেসরকারি হাসপাতালে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে না ফেরার দেশে চলে গেলেন অভিনেত্রী তাজিন আহমেদ। তিনি ছিলেন বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী। অভিনয়ের পাশাপাশি করেছেন সাংবাদিকতা। মঞ্চ নাটকে অভিনয় সাথে সাথে পরিচালনা করে হয়েছেন প্রশংসিতও। লেখালেখিতেও ছিলেন সমভাবে। ছিলেন ব্যাংকের পাবলিক রিলেশন অফিসারও। জীবনের শেষে এসে যোগ দেন রাজনৈতিক দলেও। এভাবে নিজের যোগ্যতার স্বাক্ষর রেখে যান এই পৃথিবীতে।

টিভি পর্দার এই্ জনপ্রিয় অভিনেত্রী তাজিন আহমেদের জন্ম নোয়াখালী জেলায়। কামাল আহমেদ এবং দিলারা জলির কন্যা তাজিন আহমেদ। তার ডাক নাম ছিলো জল। ১৯৯২ সালে এইচএসসি পাস করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগে ভর্তি হোন। ছাত্রজীবন থেকেই সাংবাদিকতা করেন তিনি। ১৯৯৪ সালে ভোরের কাগজ ও ১৯৯৭ সালে প্রথম আলোতে স্টাফ রিপোর্টার হিসেবে সাংবাদিকতা করেন। ১৩ বছর সাংবাদিকতা করেছেন তাজিন।

মা দিলারা জলি রচিত ও শেখ নিয়ামত আলী পরিচালিত ‘শেষ দেখা শেষ নয়’ নাটকে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে তাজিন আহমেদের অভিনয়যাত্রা শুরু হয়েছিল। নাটকটি ১৯৯৬ সালে বিটিভিতে প্রচার হয়েছিল। এরপর তিনি অসংখ্য নাটক-টেলিছবি দর্শকদের উপহার দিয়েছেন।

অভিনয়ের সাথে তিনি উপস্থাপনাও করেন। এনটিভিতে বাচ্চাদের প্রোগ্রাম ‘টিফিনের ফাঁকে’ দক্ষতার সাথে উপস্থাপনা করেন। ১০ বছর ধরে এই্ অনুষ্ঠানের উপস্থাপনা করেন তিনি। তবে বিটিভির ‘চেতনা’ নামের অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এই্ উপস্থাপনার যাত্রা শুরু করেছিলেন। তারপর অসংখ্য অনুষ্ঠানের উপস্থাপক ছিলেন তাজিন আহমেদ।

তাজিন আহমেদ ‘পিপলস রেডিও’তে  ‘শহুরে সন্ধ্যা’ নামের একটি লাইভ অনুষ্ঠানের আরজেও ছিলেন।

এছাড়া তিনি মঞ্চেও কাজ করেন। যুক্ত ছিলেন ‘নাট্যজন’ নাটকদলের সাথে। ২০০০ সালে ‘আরণ্যক’ নাট্যদলে যোগ দেন। ২০০৪ সালে তিনি নাটক লেখালেখি শুরু করেন। মোট ১২ টি নাটক লেখেন ও পরিচালনা করেন। তার লেখা ও পরিচালনায় তৈরি হয় ‘যাতক’ ও ‘যোগফল’ নামে দুটি নাটক। উল্লেখযোগ্য নাটকগুলো হচ্ছে ‘বৃদ্ধাশ্রম’, ‘অনুর একদিন’, ‘এক আকাশের তারা’, ‘হুম’, ‘সম্পর্ক’ ইত্যাদি।

তার অভিনীত নাটক হলো, ড. মোহিত কামালের ‘মন’ উপন্যাস অবলম্বনে নাটক ‘মন’। দ্বীপঙ্কর দীপনের রচনা ও পরিচালনায় এক খন্ডের নাটক ‘জলসত্ত্বা’ ও অরুণ চৌধুরীর রচনা ও পরিচালনায় ধারাবাহিক নাটক ‘নন্দন কানন’ নাটক।  আরও আছে, চাচা ইভেন্ট কোম্পানী, ভয়ংকর সুন্দরদিন, গ্রামের নাম শিমুলপুর, ‘স্মৃতির আলপনা আঁকি, বিদেশি পাড়া। অসংখ্য নাটকে তিনি অভিনয় করেন।

এছাড়া তিনি ববি হাজ্জাজের রাজনৈতিক সংগঠন ‘বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক আন্দোলন’ (এনডিএম) কেন্দ্রীয় কমিটির বিভাগীয় সম্পাদক (সাংস্কৃতিক) ছিলেন। তবে কিছুদিন পর তিনি দায়িত্ব ছেড়ে দেন।

ছোট পর্দার পরিচালক এজাজ মুন্নাকে ভালোবেসে বিয়ে করেছিলেন তাজিন আহমেদ। তবে এই সংসার বেশিদিন টেকেনি। এর পরে তাজিন বিয়ে করেন এক মিউজিশিয়ানকে।









Leave a reply