বাজার থেকে টিসিবি পণ্যের দাম বেশি!

|

স্টাফ রিপোর্টার,গোপালগঞ্জ

রমজান উপলক্ষে সারা দেশের ন্যায় গোপালগঞ্জেও টিসিবি-র পণ্য বিক্রি শুরু হয়েছে। কিন্তু বাজার মূল্য থেকে টিসিবি-র কোন কোন পণ্যের দাম বেশি, আবার কোন কোনটির দাম বাজার মূল্যের সমান। যে কারণে টিসিবি-র পণ্য বিক্রি হচ্ছেনা বললেই চলে। অন্যান্য বছর টিসিবি-র পণ্য নিমিশেই বিক্রি হয়ে যেতো। কিন্তু এবছর তার চিত্র ভিন্ন।

প্রতি বছরই রমজান মাস উপলক্ষে সরকার নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের বাজার মূল্য স্থিতিশীল রাখতে টিসিবি-র ডিলারদের মাধ্যমে পণ্য বিক্রি করে থাকে। তুলনামূলকভাবে কম দামে টিসিবি-র পণ্য কিনতে রাস্তায় ঘন্টার পর ঘন্টা দাঁড়িয়ে থেকেও দরিদ্র মানুষ অন্যান্য বছর কিনলেও এবছর তার চিত্র ভিন্ন। একেবারে ফাঁকা বললেই চলে টিসিবির দোকান গুলোতে। একদিন পণ্য তুলে ডিলাররা তা ৩/৪ দিন ধরে বিক্রি করছেন। ক্রেতাদের নানান কথার সম্মূখীন হচ্ছেন তারা।

টিসিবির দোকানে ছোলা, মুশুরী ও খেঁজুরের মূল্য স্থানীয় বাজার থেকে কেজি প্রতি ৫/১০ টাকা বেশী। তবে চিনি ও তেলের দাম বাজার মূল্যের সমান সমান বা কোন কোন ক্ষেত্রে একটু কম।

কিছুটা কম মূল্যে কেনার জন্য এসময়ে দরিদ্র জনগন টিসিবি-র পণ্যের দিকে চেয়ে থাকে। কিন্তু সে পণ্য যদি বাজার মূল্যের থেকে বেশি বা সমান সমান হয় তাহলে তারা তা কিনবেন কেন? এমন প্রশ্ন টিসিবি-র পন্য কিনতে আসা ক্রেতাদের।

টিসিবি ডিলার বুলবুল আলম ও দিপক সাহা টিসিবি-র পণ্য মূল্য বাজার থেকে বেশী একথা স্বীকার করে বলেন, আমরা খুব সমস্যায় রয়েছি।বাজার মূল্যের থেকে কোন কোন পণ্যের মূল্য বেশী। দুই দিনের পণ্য তুলে তা বিক্রি করতে ৪ দিন সময় লাগছে। তবে টিসিবি-র পণ্যের গুনগত মান ভাল বলে জানালেন এক ডিলার।

বাজার মূল্যের থেকে টিসিবি তার পণ্য মূল্য কম রেখে দরিদ্র মানুষকে কিছুটা সুবিধা দেবে এমন প্রত্যাশা খেটে খাওয়া মানুষদের।


সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply