ডায়নোসরের নতুন প্রজাতি আবিষ্কার জাপানে, ছিল তলোয়ারের মতো তীক্ষ্ণ নখ

|

নতুন আবিষ্কৃত ডায়নোসরের ছবি। ছবি: সংগৃহীত।

ডায়নোসরের এক নতুন প্রজাতী আবিষ্কার করেছেন বিজ্ঞানীরা। উত্তর জাপানের একটি দ্বীপ হোক্কাইডোতে পাওয়া জীবাশ্ম থেকেই সামনে এসেছে এ তথ্য। আজ থেকে ৬ কোটি ৬০ লাখ থেকে ১৫ কোটি ৫০ লাখ বছর আগে এশিয়ার মাটিতেই ঘুরে বেড়াতো এই ডায়নোসর। দ্বিপদী এই ডায়নোসরের ছিল তলোয়ারের মতো তীক্ষ্ণ নখ।

বিজ্ঞানভিত্তিক ওয়েবসাইট লাইফ সায়েন্সে এ নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে ডায়নোসরের সম্পূর্ণ নতুন একটি গণ ও প্রজাতির সন্ধান পেয়েছেন গবেষকরা। উত্তর জাপানের একটি দ্বীপ হোক্কাইডোতে পাওয়া জীবাশ্ম বিশ্লেষণ করে এই নতুন ডায়নোসরের খোঁজ পাওয়া গেছে। এ নিয়ে কাজ করেছেন জাপান এবং যুক্তরাষ্ট্রের সমন্বিত বিজ্ঞানীদের একটি দল। তারা জানান, সামুদ্রিক পলিতে পাওয়া এটিই প্রথম কোনো ডায়নোসরের জীবাশ্ম।

গবেষকরা নতুন আবিষ্কৃত এই প্রজাতির নাম দিয়েছেন, প্যারালিথেরিজিনোসরাস জাপোনিকাস। গবেষণা বলেছে, এই প্রজাতি ‘থেরিজিনোসর’ নামে পরিচিত একটি গোষ্ঠীর অন্তর্গত। এই প্রজাতীর ডায়নোসরগুলো দু’টি পায়ে ভর দিয়ে চলতো এবং তাদের আঙুল ছিল তিনটি। প্রাথমিকভাবে জানা যাচ্ছে, এরা তৃণভোজী প্রাণী ছিল।

তবে এই প্রজাতির মধ্যে সবচেয়ে লক্ষ্যণীয় বৈশিষ্ট্য হলো, এর তলোয়ারের মতো লম্বা ও ধরালো নখ। তৃণভোজী প্রাণীদের ক্ষেত্রে এমন বৈশিষ্ট্য বেশ বিরল। তবে ‘প্যারালিথেরিজিনোসরাস জাপোনিকাস’রা এই নখ দিয়ে পশু শিকারের পরিবর্তে বড় কোনো গাছ কাটার কাজে ব্যবহার করতো তারা।

এখন পর্যন্ত পাওয়া তথ্য বিশ্লেষণ করে গবেষকরা বলছেন, জীবাশ্মটি থেরিজিনোসরের অন্তর্গত। তবে শুধুমাত্র নমুনার ওপর ভিত্তি করে থেরিজিনোসর কত বড় ছিল তা নিশ্চিতভাবে জানা অসম্ভব বলে জানিয়েছেন গবেষক ফিওরিলো। তবে ডাইনোসরটি আকারে ৩০ ফুট লম্বা (৯ মিটার) হতে পারে এবং এর ওজন ৩ টন পর্যন্ত হতে পারে বলে জানিয়েছেন তিনি।

এসজেড/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply