ভাতিজার হাত ধরে পালালেন চাচি!

|

পলাতক লাবণী ও নূরুল আলম।

ফরিদপুর প্রতিনিধি:

ফরিদপুরের সালথায় লাবনী বেগম নামে দুই সন্তানের জননীকে নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে নুরুল আলম নামে এক ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে। জানা গেছে, লাবনী সম্পর্কে নূরুল আলমের চাচি হন। দীর্ঘদিন প্রেমের পর মঙ্গলবার (৭ জুন) গভীর রাতে তারা উধাও হয়ে যান বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা। বিষয়টি নিয়ে এরইমধ্যে এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

স্থানীয় ও পরিবার সূত্রে জানা গেছে, গত ১০ বছর আগে উপজেলার গট্টি ইউনিয়নের সিংহপ্রতাপ গ্রামের মো. মোফাজ্জল খালাসির মেয়ে লাবণী বেগমের সাথে জাহিদুল ইসলামের বিয়ে হয়। জাহিদুল ও লাবণীর তার দুটি মেয়ে রয়েছে। ঘটনার পর থেকে মায়ের জন্য খাওয়া-দাওয়া বন্ধ করে দিয়ে কান্নাকাটি করছে তারা। এ ঘটনায় লাবনীর স্বামী জাহিদুল ইসলাম বুধবার (৮ জুন) দুপুরে সালথা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক এলাকাবাসী জানান, লাবণীর সাথে তার প্রতিবেশী ৭নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য নূরুল আলমের পরকীয়া সম্পর্ক ছিল। নূরুল আলম অবিবাহিত ছিলেন। লাবণী ও নুরুল আলম সম্পর্কে চাচি-ভাতিজা হওয়ায় কোনো বাধা ছাড়াই দীর্ঘদিন লাবণীর বাড়িতে যাতায়াত ছিলো নূরুলের। যে প্রেমের বলি এখন লাবনীর দুই মেয়ে মারিয়া আক্তার (৯) ও ফারিয়া আক্তার (৫)। কে এখন তাদের দেখাশোনা করবে, সে চিন্তায় এখন পরিবার। মা ছাড়া তারা এখন পাগল প্রায়।

পলাতক লাবণীর স্বামী জাহিদুল ইসলাম বলেন, আমার স্ত্রী মঙ্গলবার রাত আনুমানিক ২টার দিকে প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে ঘর থেকে বের হয়। কিন্তু, তার ঘরে ফিরতে দেরি দেখে আমি বের হয়ে তাকে অনেক খুঁজি, কিন্তু কোথাও পাইনি। পরে জানতে পারি যে, সে প্রতিবেশী ইউপি সদস্য নুরুল আলমের সাথে চলে গেছে।

সালথা থানার এসআই আওলাদ হোসেন বলেন, এ বিষয়ে ওই পলাতক গৃহবধুর স্বামী একটি নিখোঁজ সংক্রান্ত সাধারণ ডায়েরি করেছেন। তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানান তিনি।

/এসএইচ





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply