এ অঞ্চলের যোগাযোগের কেন্দ্রস্থল হতে চায় বাংলাদেশ: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

|

আসামে অনুষ্ঠিত হচ্ছে নদী সম্মেলন।

রেল-নদী ও সড়কের মাধ্যমে ভারতসহ আশপাশের দেশগুলোর সাথে সংযোগ আরও বাড়িয়ে এই অঞ্চলের যোগাযোগের কেন্দ্রস্থল হতে চায় বাংলাদেশ। এমনটিই জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডক্টর এ কে আব্দুল মোমেন।

শনিবার (২৮ মে) সকালে ভারতের আসামের রাজধানী গুয়াহাটিতে তৃতীয় নদী সম্মেলনে যোগ দিয়ে এ কথা জানান তিনি। বেসরকারি এই উদ্যোগে যোগ দিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডক্টর এ কে আব্দুল মোমেন ও ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুব্রামানিয়াম জয়শঙ্করসহ দুদেশের নীতিনির্ধারকরা।

এ সময় মন্ত্রী রোহিঙ্গা ইস্যুতে বলেন, তারা নিজ দেশে ফেরত না গেলে এই অঞ্চলে সন্ত্রাসবাদ মাথাচাড়া দিতে পারে। রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে ভারতের সহায়তা চান মন্ত্রী। এ সময় ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শংকর বলেন, মিয়ানমার, ভারত ও বাংলাদেশের সড়ক পথে যোগাযোগ এই অঞ্চলকে বদলে দিতে পারে। ভারতের সেভেন সিস্টার্সের সাথে বাংলাদেশের যে নদীগুলো সংযুক্ত, অববাহিকায় সেগুলোর প্রবাহ কীভাবে আরও বাড়ানো যায়; সেই সাথে নদীর ব্যবহার আরও অর্থবহ করার মাধ্যমে দুই দেশের মানুষের জীবনে ইতিবাচক পরিবর্তন কীভাবে আনা যায় , সেই কর্মপন্থার তাগিদ দিয়েছেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শংকর।

সম্মেলনে দুই দেশের অভিন্ন নদীসহ, নদী বিষয়ে নানা আলোচনায় সমস্যার সমাধান খোঁজার পরামর্শ দেন অতিথিরা। অভিন্ন ৫১ নদীর সদ্ব্যবহার কীভাবে করা যায়, তা নিয়ে আলোচনা হয় এবারের নদী সম্মেলনে। সেই সাথে প্রাধান্য পায় হারানো নৌপথ উদ্ধার এবং তা আবার চালু করার কর্মপরিকল্পনা।

এদিকে, ৩০ মে দিল্লিতে হচ্ছে না বাংলাদেশ-ভারত যৌথ পরামর্শক কমিটির সভা। এর পরিবর্তে সভা হবে ১৮ ও ১৯ জুন।

আরও পড়ুন: মে নয়, বাংলাদেশ-ভারত যৌথ পরামর্শক কমিটির সভা জুনে

/এম ই





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply