যে কারণে ইউক্রেনের হয়ে যুদ্ধ করছেন বেলারুশীয়ানরা

|

ইউক্রেন যুদ্ধে স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে যোগ দিয়েছেন বেলারুশের অনেক নাগরিক। রাশিয়ার মিত্র রাষ্ট্র হওয়া সত্ত্বেও যুদ্ধের ময়দানে রুশবিরোধী অবস্থান এ বেলারুশীয়ানদের। মিনস্কের অভ্যন্তরীন ইস্যুতে হস্তক্ষেপ ও স্বৈরশাসক লুকাশেঙ্কোকে সমর্থন দেয়ায় মস্কোর ওপর ক্ষুব্ধ তারা। তাই ইউক্রেনে রুশ বাহিনীকে পরাজিত করার মাধ্যমে নিজ দেশকে কঠোর বার্তা দিতে চান। যদিও রাষ্ট্রীয় নীতির বাইরে গিয়ে ইউক্রেনের পক্ষে যুদ্ধে নাম লিখিয়েছেন এই যোদ্ধারা।

বেলারুশের প্রেসিডেন্ট লুকাশেঙ্কোর সাথে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিনের। নিজ দেশে পুতিন সমর্থিত শাসকের দমন পীড়নে ক্ষুব্ধ বেলারুশের এসব নাগরিক। ইউক্রেনে রুশ বাহিনীর পরাজয়ের মাধ্যমে নিজ দেশের গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার লড়াই কিছুটা হলেও অগ্রসর হবে বলে বিশ্বাস তাদের। বেলারুশ ইউনিটের প্রধান ভাদিম প্রকোপিয়েভ বলছেন, আমরা জানি বেলারুশকে রাশিয়ার বলয় থেকে বের করে আনা একটা দীর্ঘ সময়ের ব্যাপার। তিনি মনে করছেন, আমাদের জার্নিটা ইউক্রেন থেকেই শুরু হলো। পুতিনের হাত থেকে ইউক্রেনকে মুক্ত না করা পর্যন্ত বেলারুশের মুক্তিও সম্ভব না।

সীমান্ত পাড়ি দিয়ে এরই মধ্যে ইউক্রেনের পক্ষে যুদ্ধে নাম লিখিয়েছেন বেলারুশের অনেক নাগরিক। কেউ কেউ অংশ নিচ্ছেন সম্মুখ সমরেও। অনেকে আবার আরেক প্রতিবেশী পোল্যন্ডে গিয়ে নিচ্ছেন প্রশিক্ষণ। সাবেক মার্কিন সেনা ম্যাথিউ পার্কারও বলছেন, বেলারুশের যেসব নাগরিক ইউক্রেনের হয়ে যুদ্ধ করছে, তারা সবাই-ই লুকাশেঙ্কোর ওপর বিরক্ত। দেশটির অভ্যন্তরীণ ইস্যুতে পুতিনের নাক গলানোর কারণে তারা রাশিয়াকে ঘৃণা করে। ইউক্রেনকে জেতানোর মধ্য দিয়ে এসব যোদ্ধারা নিজ দেশের মানুষকে বুঝাতে চান যে, চাইলে তারাও জিততে পারবে।

১৯৯৪ সাল থেকে বেলারুশের ক্ষমতায় রয়েছেন আলেকজান্ডার লুকাশেঙ্কো। ক্ষমতা ধরে রাখতে বিরোধীদের দমন পীড়ন ও অবৈধভাবে নির্বাচনে জয়ের অভিযোগ আছে তার বিরুদ্ধে।

/এডব্লিউ





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply