খুলনায় ছাত্রলীগ-বিএনপির দফায় দফায় সংঘর্ষ: ১৫০ রাউন্ড গুলি, আটক ৪২

|

খুলনা ব্যুরো:

খুলনায় ছাত্রলীগ ও বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ১৫০ রাউন্ড গুলি ও কমপক্ষে ৫০ রাউন্ড টিয়ারশেল নিক্ষেপ করেছে পুলিশ। সংঘর্ষ চলাকালে নগরীর বিএনপি কার্যালয়ের আশেপাশের এলাকা থেকে ৪২ নেতাকর্মীকে আটক করা হয়েছে। সংঘর্ষ চলাকালে পুলিশের দুই সদস্য ও বিএনপির পাঁচ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার (২৬ মে) বিকেল সোয়া ৫টা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা পর্যন্ত দেড় ঘণ্টাব্যাপী এ সংঘর্ষ চলে। সংঘর্ষের কারণে বিএনপির পূর্ব নির্ধারিত প্রতিবাদ সমাবেশ পণ্ড হয়ে যায়।

দুপুর থেকেই নগরীর কেডি ঘোষ রোডে বিএনপির দলীয় কার্যালয়ের সামনে পূর্বঘোষিত প্রতিবাদ সমাবেশ কর্মসূচিতে যোগ দিতে বিএনপি নেতাকর্মীরা বিভিন্ন স্থান থেকে মিছিল সহকারে আসতে থাকে। বিএনপির একটি খণ্ড মিছিল নগরীর পিকচার প্যালেস মোড়ে পৌঁছালে অপরদিক থেকে আসা ছাত্রলীগের মিছিল মুখোমুখি অবস্থান নেয়। এসময় পুলিশ ছাত্রলীগের মিছিলটিকে গতিরোধ করলে বিএনপির কর্মীরা পাশ দিয়ে যাবার সময় ছাত্রলীগকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করলে শুরু হয় সংঘর্ষ।

এরপর শতাধিক ছাত্রলীগ নেতাকর্মী লাঠি ও বাঁশ নিয়ে বিএনপির নেতাকর্মীদের ওপর হামলা চালায়। মুহুর্মুহু সংঘর্ষে নগরীর কেডিঘোষ, ক্লে রোড, হেলাতলা, কালিবাড়ি সড়ক রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। এক পর্যায়ে পুলিশের উপস্থিতিতেই ছাত্রলীগ কর্মীরা বিএনপির প্রতিবাদ কর্মসূচিতে হামলা চালায়। এ সময় সমাবেশস্থলের মঞ্চ ও কয়েকশ’ প্লাস্টিকের চেয়ার ভাঙচুর করা হয়।

অপরদিকে, বিএনপি কর্মীরা ছত্রভঙ্গ হয়ে প্রতিপক্ষকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করলে পুলিশ টিয়ারশেল ছোড়ে। টিয়ারশেলের ধোঁয়ায় গোটা এলাকা ধোঁয়াচ্ছন্ন হয়ে যায়।

খুলনা থানার ওসি মামুন আল হাসান জানান, সংঘর্ষ চলাকালে তারা ১৫০ রাউন্ড রবার বুলেট ও ৫০ রাউন্ড টিয়ার শেল নিক্ষেপ করেছেন। এ সময় দায়িত্ব পালনরত অবস্থায় কনস্টেবল পলাশ ও এসআই বিএম মনির গুরুত্বর আহত হয়েছেন এবং তাদের খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

তিনি আরও জানান, সংঘর্ষ চলাকালে বিএনপি মহানগর শাখার সাধারণ সম্পাদক শফিকুল আলম তুহিনসহ ৪২ জনকে আটক করা হয়েছে।

এটিএম/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply