পিটিআইয়ের জ্যেষ্ঠ নেতাদের বাড়িতে পুলিশের অভিযান, সরকারকে সতর্ক করলেন ইমরান

|

ছবি: সংগৃহীত

পাকিস্তানের সদ্য সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের রাজনৈতিক দল পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফের (পিটিআই) দুইজন জ্যেষ্ঠ নেতাকে গ্রেফতার করতে তাদের বাড়িতে অভিযান চালিয়েছে পুলিশ। এছাড়া আরও একজন নেতাকে গ্রেফতারের উদ্দেশে তার বাড়ির বাইরে অবস্থান নিয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। সরকারের এই পদক্ষেপের তীব্র সমালোচনা করে ইমরান খান বলেছেন, সরকার যদি অবিলম্বে দমন নীতি থেকে সরে না আসে, তাহলে পাকিস্তানে নৈরাজ্য শুরু হবে। খবর ডনের।

বৃহস্পতিবার (২৬ মে) সকালে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে ডন জানিয়েছে, বুধবার (২৫ মে) রাতে লাহোরে পিটিআইয়ের জ্যেষ্ঠ নেতা ও পাকিস্তানের সাবেক অর্থমন্ত্রী হাম্মাদ আজহার ও পাকিস্তানের সাবেক প্রধামন্ত্রীর জ্যেষ্ঠ সহকারী উসমান দারের বাসভবনে অভিযান চালায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। কিন্তু তারা বাড়িতে না থাকায় তাদের গ্রেফতার করা যায়নি বলে জানা গেছে। এছাড়াও গত সোমবার থেকেই ইসলামাবাদে সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ রশিদের বাড়ির সামনে অবস্থান নিয়েছে পুলিশ। বাড়িতে আসা মাত্র গ্রেফতার করা হবে তাকে। পুলিশি অভিযানের পর এক টুইটবার্তায় হাম্মাদ আজহার বলেছেন, ক্ষমতা থাকলে আমাদের থামিয়ে দেখান।

জানা গেছে, রাজধানী অভিমুখে পিটিআইয়ের আজাদি মার্চ ঠেকাতেই সরকার এ পদক্ষেপ নিয়েছে উল্লেখ করে পৃথক এক টুইটবার্তায় ইমরান খান বলেন, শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ পাকিস্তানের প্রতিটি নাগরিকের অধিকার; কিন্তু পাঞ্জাব ও ইসলামাবাদে যেভাবে পিটিআইয়ের নেত-কর্মীদের ধরপাকড় করা হচ্ছে— তা ক্ষমতাসীন পিএমএলএন (পাকিস্তান মুসলীম লীগ- নওয়াজ) সরকারের ফ্যাসিবাদি নীতির প্রমাণ। অতীতেও এমন বহু প্রমাণ দিয়েছে তারা।

ক্ষমতাসীন সরকারকে জুয়াচোর উল্লেখ করে তিনি ইমরান খান বলেন ইতোমধ্যে পাকিস্তানের অর্থনীতি তলানিতে গিয়ে ঠেকেছে। আমি সব জুয়াচোর ও তাদের দোসরদের সতর্কবার্তা দিয়ে বলতে চাই যে, এ মুহূর্তে যে কোনো অগণতান্ত্রিক ও ফ্যাসিবাদি পদক্ষেপ দেশকে চরম নৈরাজ্যের দিকে নিয়ে যাবে।

এদিকে, অবিলম্বে নতুন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার দাবিতে রাজধানী ইসলামাবাদ অভিমুখে লংমার্চ কর্মসূচী ঘোষণা করেছেন ইমরান খান ও তার দল পিটিআইয়ের সমর্থকরা। আর যে কোনো মূল্যে এ কর্মসূচি ঠেকাতে মরিয়া পাকিস্তান মুসলিম লীগ -নওয়াজের নেতৃত্বাধীন জোট সরকার।

/এসএইচ





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply