নব্বই দশকের জনপ্রিয় ব্যান্ডশিল্পী এখন গণশৌচাগারের তত্ত্বাবধায়ক!

|

ব্লু হরনেটের মনসুর হাসান এখন যেমন আছেন।

ভাগ্য কখন কাকে কোথায় নিয়ে দাঁড় করায়, কে বলতে পারে! আর এর উদাহরণ নব্বই দশকের জনপ্রিয় ব্যান্ডশিল্পী মনসুর হাসান। একসময় মুগ্ধতা ছড়াতো যার কণ্ঠ, সময়ের পরিক্রমায় তিনি এখন গণশৌচাগারের তত্ত্বাবধায়ক। তার নেই ঘরবাড়ি কিংবা সংসার। ফুটপাতের ছোট্ট বেঞ্চই তার ঠিকানা। রোগ-শোকে আক্রান্ত সেই শিল্পীকে আজ চেনাই দায়।

নব্বই দশকের পরিচিত ব্যান্ড ‘ব্লু হরনেট’ এর একটি অ্যালবামে ছিল জননন্দিত গান ‘বাটালি হিলের সেই বিকেল’। গানটির শিল্পী এই মনসুর হাসান, যিনি এখন চট্টগ্রাম মহানগরীর জামালখান মোড়ের গণশৌচাগারের তত্ত্বাবধায়ক। মহসিন কলেজে এইচএসসি ২য় বর্ষে পড়ার সময় ৬ বন্ধু মিলে গড়ে তুলেছিলেন ব্যান্ড ব্লু হরনেট। মনসুরের গাওয়া কয়েকটি গান তখন বেশ জনপ্রিয়তা পায়। তিনি গান লিখতেন, গাইতেন। ব্লু হরনেটের একমাত্র অ্যালবামে ১৪টি গানের ৩টি মনসুরের।

মনসুর হাসান থাকেন এখন ফুটপাথের বেঞ্চে।

অথচ ভাগ্য আজ তাকে দাঁড় করিয়ে দিয়েছে এমন এক বিন্দুতে, যেখান থেকে নিজেকেও যেন আর চিনতে পারেন না তিনি। মাদকাসক্ত হয়ে পড়ালেখায় বিরতি, পরিবারের সাথে দূরত্ব, রাজনীতিতে জড়িয়ে কারাবরণ, বাবা মা’র মৃত্যু, ঘর ছেড়ে পথে নামা; সব মিলিয়ে তার জীবনে নাটক কম ছিল না। দুর্ভাগ্যবশত, তার প্রায় সবই ট্র্যাজেডি। মনসুর হাসান জানান, ভারত থেকেও অ্যালবাম বের করার প্রস্তাব পেয়েছিলেন তিনি। নানা কারণে সেই অ্যালবামের কাজটি আর করা হয়ে ওঠেনি ব্লু হরনেট বা মনসুরের।

বিয়ে না করায় সংসার হয়নি, খেয়ে না খেয়ে পথে ঘাটে কেটেছে মনসুর হাসানের বহু রাত। বছর চারেক আগে ৯ হাজার টাকা বেতনে গণশৌচাগার দেখভালের চাকরি নেন। থাকেন ফুটপাতের বেঞ্চিতে। মনসুর জানালেন, অভাব দিয়ে স্বভাব পরীক্ষা করা হচ্ছে যেন তার। এক বেলার খাবার দুই বেলা খেয়ে কাটছে জীবন।

৫৪ বছর বয়সী মনসুর নানা রোগে আক্রান্ত। কয়েকদিন আগে তার পরিচয় জেনে চিকিৎসা ও সহায়তার উদ্যোগ নেন স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর শৈবাল দাশ সুমন। তিনি বলেন, সবকিছুর কারণে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত মনসুর হাসান। আর এই অবস্থা দূর করতেই ডাক্তারের পরামর্শে চিকিৎসালয়ে ভর্তি করানোর কাজ চলছে।

/এম ই





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply