ভালোই জবাব দিচ্ছেন লঙ্কান ব্যাটাররা

|

ছবি: সংগৃহীত

মিরপুরে বাংলাদেশের প্রথম ইনিংসে করা ৩৬৫ রানের ভালোই জবাব দিচ্ছে শ্রীলঙ্কা। দুই ওপেনারের দারুণ ব্যাটিংয়ে উদ্বোধনী জুটিতেই ৯৫ রান তুলে ফেলে লঙ্কানরা। এরপর কুশল মেন্ডিসকে নিয়ে ব্যাট করছেন দিমুথ করুনারত্নে। প্রতিবেদনটি লেখা পর্যন্ত লঙ্কানদের সংগ্রহ ছিল ১ উইকেট হারিয়ে ১৩৪ রান।

অধিনায়ক দিমুথ করুনারত্নেকে নিয়ে বেশ সাবলীল মেজাজেই ব্যাটিং শুরু করেন ওপেনার ওশাদা ফার্নান্দো। সম্পূর্ণ ব্যাটিং উপযোগী উইকেটে নেই পেসার ও স্পিনারদের জন্য তেমন কোনো সাফল্য। বরং প্রায় প্রতি ওভারেই আলগা বল থাকায় ব্যাটারদের ওপর সৃষ্টি হয়নি তেমন কোনো চাপ। রান রেট চারের ওপর রেখে ব্যাট করতে থাকেন দুই লঙ্কান ওপেনার। বেশি আগ্রাসী ছিলেন ওশাদা ফার্নান্দো। ৮ বাউন্ডারি ও ১টি ওভার বাউন্ডারির সাহায্যে ৯১ বলে ৫৭ রান করা ওশাদাকে ফিরিয়ে টাইগার শিবিরে কিছুটা হলেও স্বস্তির সুবাতাস বইয়ে দেন এবাদত হোসেন। তবে দিমুথ করুনারত্নের উইকেটও সেই ওভারেই পেতে পারতেন এবাদত। ইমপ্যাক্টে দেখা যায়, লাইনে পিচ করা এই পেসারের বলটি ভেঙে দিতো লঙ্কান অধিনায়কের মিডল স্ট্যাম্প। রিভিউ নেয়ার ক্ষেত্রে ব্যর্থতার বৃত্ত থেকে যেন আর বের হওয়াই হচ্ছে মুমিনুলদের! করুনারত্নেও তাই অপরাজিত আছেন ৬৪ রান নিয়ে।

এর আগে, দ্বিতীয় দিনের শুরুতেই ভাঙে মুশফিক-লিটন জুটি। আগের দিনের ৫ উইকেট ২৭৭ রান নিয়ে সকালে মাঠে নামে বাংলাদেশ। মুশফিক ১১৫ আর লিটন দাস অপরাজিত ছিলেন ১৩৫ রান করে। কিন্তু এদিন ৬ রান করার পরই আউট হন লিটন। পেসার রাজিথার পেসে ক্যারিয়ার সেরা ১৪১ রান করে সাজঘরে ফেরেন এই ব্যাটার। এর সাথেই ভাঙে ২৭২ রানের রেকর্ড সৃষ্টিকারী এই জুটি। ২৯৬ রানে ষষ্ঠ উইকেট হারায় বাংলাদেশ। মোসাদ্দেক সৈকত ফেরেন শূন্য রানে। এরপর তাইজুল ও এবাদতকে সাথে নিয়ে সাড়ে তিনশো পার করেন মুশফিক। ক্যারিয়ারের চতুর্থ সর্বোচ্চ ১৭৫ রানে অপরাজিত থাকেন মুশফিক। দুই পেসার রাজিথা ৫টি ও আসিথা চার উইকেট নেন।

আরও পড়ুন: সকালে থাকলে তো হার্ট অ্যাটাকই করে ফেলতাম: পাপন

/এম ই





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply