পুঁজিবাজারে বড় ধস, রাতারাতি নিঃস্ব বহু বিনিয়োগকারী

|

পুঁজিবাজারে এবারের বড় ধরনের দরপতনে নিঃস্ব হয়ে গেছে সাধারণ বিনিয়োগকারীরা। মূলধন হারিয়েছে ছোট-বড় সবাই। বৈশ্বিক ইস্যুকে কেন্দ্র করে একটি চক্র গুজব ছড়িয়ে ফায়দা নিয়েছে বলে অভিযোগ বিনিয়োগকারীদের। শেয়ারবাজারে স্বাভাবিক অবস্থা ফেরাতে নিয়ন্ত্রক সংস্থাকে আরও উদ্যোগী হওয়ার আহ্বান তাদের।

সাম্প্রতিক সময়ে সবচেয়ে বড় ধরনের দরপতন হয়েছে শেয়ারবাজারে। টানা ৮ দিনের পতনে সূচক কমেছে প্রায় ৬০০ পয়েন্ট। বাজার মূলধন হারিয়েছে ৫০ হাজার কোটি টাকা। এই ধসে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন সাধারণ বিনিয়োগকারীরা। মার্জিন ঋণ নিয়ে বিনিয়োগ করে অনেকেই পড়েন ফোর্স সেলের মুখে।

শেয়ারবাজারে দরপতনের জন্য বিশ্ব অর্থনীতি ও ডলারের দামের অস্থিরতাকে দায়ী করা হচ্ছে। যদিও বিনিয়োগকারীরা বলছেন, এগুলোকে পুঁজি করে গুজব ছড়াচ্ছে একটি চক্র। এ অবস্থায় মার্জিন ঋণের রেশিও বৃদ্ধি এবং আইসিবির অর্থায়নকে ব্যাংকের বিনিয়োগ সীমার বাইরে রাখার সিদ্ধান্ত নেয় নিয়ন্ত্রক সংস্থা। এমন খবরে সপ্তাহের দ্বিতীয় দিনে ঘুরে দাঁড়ায় পুঁজিবাজার। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সরকারের এমন উদ্যোগ কিছুটা হলেও বিনিয়োগকারীদের আস্থা বাড়াবে।

কেনো এমন পরিস্থিতি, এর জবাবে মার্চেন্ট ব্যাংক অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ছায়েদুর রহমান বলেন, স্বাভাবিকভাবে যতটা লোড হওয়ার কথা শেয়ারবাজরে তার চেয়েও অনেক বেশি লোড পড়ছে। এর প্রধান কারণ হিসেবে অস্থিরতাকে দায়ী করেছেন এই ব্যাংক কর্মকর্তা। একই সুরে কথা বললেন, ডিবিএর সহ-সভাপতি সাজেদুল ইসলাম। তিনি বলেন, কোনো কোম্পানির প্রোফিট বাড়েনি। কাল যা ছিল, আজও তাই আছে। কিন্তু ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সাধারণ মানুষ। তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করলে দেখা যাবে, এটি হয়েছে মূলত ফোর্স সেলের কারণে।

শুধু আইসিবি’র একার পক্ষে পুরো বাজার নিয়ন্ত্রণ সম্ভব নয় বলেও মনে করেন সংশ্লিষ্টরা। তাদের মতে বাজারে স্থিতিশীলতা আনতে প্রতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের আরও সক্রিয় হতে হবে। অর্থমন্ত্রণালয় এবং নিয়ন্ত্রক সংস্থার সিদ্ধান্তগেুলো বাস্তবায়ন হলে পুঁজিবাজার আগের অবস্থায় ফিরে যাবে বলে আশা সংশ্লিষ্টদের।

এসজেড/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply