ঝিনাইদহের বাওড়ে ভেসে উঠলো কোটি টাকার মাছ, পথে বসার আশঙ্কায় প্রায় ৩০০ পরিবার

|

অজ্ঞাত কারণে মারা গেছে ঝিনাইদহের মাঝদিয়া বাওড়ের প্রায় দেড় কোটি টাকার মাছ।

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি:

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলা বারোবাজার ইউনিয়নের মাঝদিয়া বাওড়ের প্রায় দেড় কোটি টাকার মাছ মারা গেছে। তবে কীভাবে এতো মাছ মারা গেল তা এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি। স্থানীয় মৎস কর্মকর্তা বলছেন, অক্সিজেন সঙ্কটে মাছগুলো মারা যেতে পারে। তবে স্থানীয়রা বলছেন, বিষক্রিয়ায় মারা যেতে পারো মাছগুলো।

জানা যায়, শনিবার (২১ মে) ও রোববার (২২ মে) এ দুই দিনে বাওড়ের ছোট-বড় সব ধরনের সকল মাছ মরে ভেসে উঠতে দেখা গেছে। ৪৫০ একর আয়তনের এই বাওড় স্থানীয় প্রায় ৩০০ মৎসজীবীর কর্মসংস্থান। এসব মৎসজীবীদের সংগঠন এ বাওড়ে মাছ চাষ করে। মাছ চাষ থেকে আসা আয়েই তাদের পরিবারের জীবিকা নির্বাহ হয়ে থাকে। হঠাৎ বিপুল সংখ্যক মাছ মরে যাওয়ায় এসব মৎসজীবীরা পথে বসেছেন। মরে যাওয়া মাছগুলোর ওজন প্রায় ৩ হাজার কেজি হবে বলে জানিয়েছেন মৎসজীবী ও স্থানীয়রা।

স্থানীয় কৃষক সবুর উদ্দীন (৩০) জানান, শনিবার সকাল ৬টার দিকে প্রবল গতির টর্নেডো বয়ে যায়। এরপর আমরা মাঠে কাজ করতে এসে দেখি বাওড়ের কিছু মাছ মরে ভেসে উঠেছে। তখন আমরা মাছগুলো ধরি। অনেকে মাছগুলো ধরে বাড়ি নিয়ে যায় কিন্তু আজ সকালে বাওড়ের পাশে এসে দেখি হাজার হাজার মাছ মরে ভেসে আছে। আমার জীবনে কখনও এ বাওড়ে এভাবে মাছ মরতে দেখিনি।

স্থানীয় ইউপি মেম্বার খোকন জানান, বাওড়ে মরে যাওয়া মাছের ওজন প্রায় ৩ হাজার কেজি হবে। এসব মাছের মধ্যে ৫-৭ কেজি ওজনের মাছও রয়েছে।

বারোবাজার ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ জানান, যেভাবে মাছ মরেছে তা বর্ণনা করার মতো না।  এ বাওড়ে ২৫০-৩০০ পরিবারের কর্মসংস্থান রয়েছে। আমরা বিভিন্নভাবে তদন্ত করছি মাছ মরার পেছনে কোনো মহলের ষড়যন্ত্র আছে কী না। তবে প্রাথমিকভাবে সবার সাথে কথা বলে জানা গেছে যে, শনিবার ভোরে প্রবল বেগের ঘুর্নিঝড় হওয়ায় বাওড়ের পানি এক পাশে উঠে যায়, তখনই মাছগুলো কাদার মধ্যে আটকে নিঃশ্বাস না নিতে পারায় মারা যেতে পারে।

কালীগঞ্জ উপজেলা সিনিয়র মৎস কর্মকর্তা হাসান সাজ্জাদ জানান, খবর পাওয়ার সাথে সাথে বাওড় পরিদর্শন করি। অক্সিজেন সঙ্কটের কারণে এ মাছগুলো মারা গেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। তবে পানি পরীক্ষার পর বিষয়টি আরও নিশ্চিত হওয়া যাবে বলে জানান তিনি।

সিনিয়র এ মৎস কর্মকর্তা আরও জানান, শনিবার সকালে কালবৈশাখী ঝড় হয়েছে। এরপরই মূলত মাছগুলো মরে যেতে থাকে। এ কারণেই ধারণা করা হচ্ছে যে অক্সিজেন সঙ্কটের কারণে এমনটা হতে পারে।

/এসএইচ





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply