সিলেটে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি নেই, ত্রাণ নিয়ে চলছে কাড়াকাড়ি; পুলিশের লাঠিচার্জ

|

পানিতে ভাসছে সিলেটের একাধিক অঞ্চল।

সিলেট ব্যুরো:

সিলেটে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হয়নি। সুরমা-কুশিয়ারার পানি কিছুটা কমলেও এখনও তা বিপদসীমার উপর দিয়েই প্রবাহিত হচ্ছে। শুক্রবার (২০ মে) জকিগঞ্জে ভেঙে যাওয়া বাঁধ দিয়ে এখনও পানি ঢুকছে লোকালয়ে। অনেকে আশ্রয় কেন্দ্রে ঠাঁই নিয়েছেন। এছাড়া, নগরীর এক তৃতীয়াংশ ডুবে আছে পানিতে। সরকারি হিসেব বলছে, সিলেটের ১২ উপজেলার ১৩ লাখ মানুষ এখন পর্যন্ত বন্যাকবলিত। তাদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করতে গিয়েও দেখা দিচ্ছে অপ্রতুলতা। ফলে কাড়াকাড়ি-হুড়োহুড়ির মতো পরিস্থিতি সৃষ্টি হচ্ছে।

শনিবার (২১ মে) সকালে কোম্পানিগঞ্জ থানা বাজার এলাকায় ত্রাণ বিতরণ করেন প্রবাসী কল্যাণ ও কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমেদ। তবে সেই ত্রাণ নিয়ে কাড়াকাড়ি শুরু হয় সিলেটের বন্যার্তদের মধ্যে। এক পর্যায়ে পুলিশ লাঠিচার্জ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে বাধ্য হয়। জানা গেছে, তালিকা করে ৬ ইউনিয়নের ১২০ পরিবারের মাঝে চাল-ডালসহ শুকনো খাবার বিতরণ করেন প্রবাসী কল্যাণ ও কর্মসংস্থান মন্ত্রী। তবে ত্রাণ নিতে আসেন কয়েকশ’ মানুষ। ফলে দেখা দেয় অপ্রতুলতা। এক পর্যায়ে ত্রাণ নিয়ে হুড়োহুড়ি শুরু হয়। পরে পুলিশ পিটিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করে। তবুও ত্রাণ কেড়ে নিয়ে চলে যায় অনেকেই।

এদিকে, সুনামগঞ্জে বন্যার পানিতে বর্জ্য পদার্থ মিশে ছড়াচ্ছে তীব্র দুর্গন্ধ। এরই মধ্যে দেখা দিয়েছে বিভিন্ন রোগবালাই। খাবার পানির ভয়াবহ সঙ্কট তৈরি হয়েছে, রয়েছে ত্রাণের অভাবও। ছাতক ও দোয়ারা বাজারের পাশাপাশি জেলা শহরের ওয়েজখালি, নতুনপাড়া, শান্তিবাগ ও কালিপুরসহ বেশকিছু এলাকার মানুষ এখন পানিবন্দি। সড়কে পানি থাকায় ব্যাহত হচ্ছে চলাচল। দুর্বিষহ জীবন কাটছে এসব এলাকার মানুষদের।

এসজেড/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply