বিশ্বব্যাপী খাদ্য সঙ্কট নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়ার পাল্টাপাল্টি অভিযোগ

|

চলমান ইউক্রেন যুদ্ধ নিয়ে সৃষ্ট বিশ্বব্যাপী খাদ্য সঙ্কটের জন্য একে অন্যকে দোষারোপ করছে যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়া। ওয়াশিংটনের অভিযোগ, রাশিয়া কৃষ্ণ সাগরের কাছে ইউক্রেনের বন্দর অবরুদ্ধ করে রাখায় খাদ্যশস্য রফতানি করতে পারছে না দেশটি। খবর এনডিটিভি।

বৃহস্পতিবার (১৯ মে) জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে এ অভিযোগ করেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন।

ব্লিঙ্কেন বলেন, ইউক্রেন বিশ্বের অন্যতম শীর্ষ খাদ্যশস্য রফতানিকারক দেশ। আপনারা কৃষ্ণসাগরে দেশটির সকল বন্দর খুলে দিয়ে খাদ্যবাহী জাহাজ, ট্রাক ও ট্রেনগুলোকে আসা যাওয়ার সুযোগ করে দিন। এছাড়া তিনি যুদ্ধের সমালোচনাকারী দেশ থেকে খাদ্য এবং সার রফতানিতে হুমকি দেয়া বন্ধ করতেও আহ্বান জানান।

ব্লিঙ্কেনের অভিযোগ, লক্ষ লক্ষ ইউক্রেনীয় ও সারাবিশ্বে খাদ্য সরবরাহে অসুবিধার জন্য রাশিয়া এককভাবে দায়ী।

ব্লিঙ্কেনের অভিযোগের পাল্টা জবাব দিয়ে রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত ভ্যাসিলি নেবেনজিয়া বলেন, বিশ্বের সমস্ত দুর্দশার জন্য তার দেশকে দায়ী করা হচ্ছে। রাশিয়ার জন্য নয় বরং বীমার ক্রমবর্ধমান ব্যয়, পশ্চিমাদের কারণে সৃষ্টি হওয়া মুদ্রাস্ফীতির জন্য সারা বিশ্ব দীর্ঘদিন ধরে খাদ্য সঙ্কটে ভুগছে।

তিনি আরও বলেন, ইউক্রেন নিজেরাই তাদের বন্দরগুলো বন্ধ করে রেখেছে এবং তারা বন্দরে অবরুদ্ধ কয়েক ডজন বিদেশী মালবাহী জাহাজকে মুক্ত করতে শিপিং সংস্থাগুলিকে সাহায্য করছে না। রাশিয়ার ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞার কারণেই সারা বিশ্ব খাদ্য সঙ্কট চলছে।

কিন্তু, রাশিয়ার রাষ্ট্রদূতের অভিযোগের জবাব দিয়ে ব্লিঙ্কেন বলেন, খাদ্যদ্রব্য রফতানিতে রাশিয়ার ওপর কোনো নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়নি।

জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্টোনিয়ো গুতেরেস ইউক্রেনীয় শস্য রফতানির অনুমতি দেয়ার জন্য রাশিয়াকে আহ্বান জানানোর একদিন পর প্রায় ৮০টি দেশ নিরাপত্তা পরিষদের এ বৈঠকে অংশ নেয়।

এটিএম/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply