ক্রেডিট কার্ডধারী কয়েকশ’ গ্রাহকের তথ্য হ্যাকারদের কাছে ফাঁস করতেন ব্যাংক কর্মকর্তা

|

গ্রেফতারকৃত প্রতারক চক্র।

ক্রেডিট কার্ডের গোপন তথ্য প্রতারকদের কাছে তুলে দিতেন ব্যাংকের এক কর্মকর্তা। সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংকের (এসআইবিএল) শতশত গ্রাহকের তথ্য ফাঁসকারী হলেন ক্রেডিট কার্ড শাখার সহকারী অফিসার কাবুল হাসান রশিদ। কাবুলের কাছ থেকে তথ্য নিয়ে প্রতারণার জাল বিছাতো হ্যাকাররা। এ নিয়ে বেশ কয়েকটি মামলার পর চক্রটিকে গ্রেফতার করেছে ঢাকার গোয়েন্দা পুলিশ।

সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংকের ক্রেডিট কার্ড শাখার অ্যাসিসটেন্ট রিলেশনশিপ অফিসার হিসেবে কর্মরত ছিলেন কাবুল হাসান রশিদ। প্রায় তিনবছর আগে যোগ দিয়েছিলেন চুক্তিভিত্তিক কর্মকর্তা হিসেবে। কয়েকদিন পরই তার চাকরি স্থায়ী হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু তার আগেই ধরা পড়লো এই কর্মকর্তার কুকীর্তি।

ডিবি পুলিশ বলছে, ব্যাংকের সার্ভারে থাকা ক্রেডিট কার্ডের নাম্বার, ঠিকানা, সিবিসিসহ গ্রাহকদের যাবতীয় তথ্য প্রতারক চক্রের কাছে সরবরাহ করতেন কাবুল। ডিএমপি’র ডিবি অতিরিক্ত কমিশনার একেএম হাফিজ আক্তার বলেন, এই কর্মকর্তা প্রতিদিনই ব্যাংক থেকে বের হওয়ার আগে ক্রেডিট কার্ডের তথ্যগুলো সংগ্রহ করে নিতো। এরপর এসব তথ্য যেতো হাসান ও রাব্বি নামের দুই হ্যাকারের কাছে। তাদের বাড়ি মধুখালী।

বিকাশ প্রতারকদের একটি মামলার তদন্ত করতে গিয়ে চক্রটির সন্ধান পায় ডিবি। জানা যায়, ফরিদপুরের প্রতারক চক্র মোবাইল ব্যাংকিং প্রতারণার পাশাপাশি এখন ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ও ডেবিট-ক্রেডিট কার্ড জালিয়াতিতে জড়াচ্ছে। আটকের সময় কাবুলের কাছে মিলেছে অন্তত তিনশত গ্রাহকের তথ্য। এখন প্রশ্ন হলো, প্রতারকরা এসব তথ্য দিয়ে কী করে? আটককৃত একজন হ্যাকার জানান, প্রথমে একজন গ্রাহককে ফোন দিতেন সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংকের একজন কর্মকর্তা হিসেবে। এরপর তার ফোনে একটি ম্যাসেজ দিয়ে ওটিপি নাম্বারটি জেনে নিতেন তারা। এরপরই তার কার্ডের দখল চলে যেতো হ্যাকারদের কাছে।

ভুক্তভোগীরা জানান, প্রতারকরা এসআইবিএল এর হটলাইন নাম্বার ক্লোন করে গ্রাহকদের ভুল বুঝিয়ে ওটিপি নাম্বার নিয়ে নিতো। এরপর মোবাইল ব্যালান্স ট্রান্সফার করে হাতিয়ে নিতো টাকা। এসব অভিযোগে রাজধানীর বেশ কয়েকটি থানায় মামলাও হয়েছে।

পুলিশ বলছে, কোনো অবস্থাতেই কাউকে ওটিপি নাম্বার, পিনকোড বা পাসওয়ার্ড জানানো যাবে না। সেই ভুল করলে প্রতারণা অবধারিত। ব্যাংক কর্তৃপক্ষ কিংবা পুলিশের তখন কিছুই করার থাকে না। তাই সচেতনতার কোনো বিকল্প নেই।

এসজেড/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply