সয়াবিন তেল শরীরের জন্য ক্ষতিকর: বাণিজ্যমন্ত্রী

|

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

সয়াবিন তেল শরীরের জন্য ক্ষতিকর বলে মন্তব্য করেছেন বানিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। বলেন, সয়াবিনের চেয়ে রাইস ব্র্যান ভালো। সয়াবিনের বিকল্প হিসেবে রাইস ব্র্যান ও শর্ষে উৎপাদন বাড়ানোর পরিকল্পনার কথাও জানান বাণিজ্যমন্ত্রী।

বুধবার (১৮ মে) দুপুরে সচিবালয়ে আয়োজিত সচিবালয়ে দ্রব্যমূল্য ও বাজার পরিস্থিতি পর্যালোচনা সংক্রান্ত টাস্কফোর্স কমিটির ২য় বৈঠক শেষে অনুষ্ঠিত ব্রিফিংয়ে এসব কথা বলেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। জানিয়েছেন, দেশে এখন রাইস ব্র্যান ৫০ থেকে ৬০ হাজার টন উৎপাদন হয়। এটিকে সাত লাখ টনে নিয়ে যাওয়া সম্ভব। সেটি করতে পারলে মোট চাহিদার ২৫ শতাংশ পূরণ করা সম্ভব হবে।

দেশে নিত্যপণ্যের দাম বেড়েই চলেছে, এ জন্য আন্তর্জাতিক বাজারকে দায়ী করেছেন টিপু মুনশি। বলেন, আন্তর্জাতিক বাজারে দাম না কমলে কিছুই করতে পারবো না।

নিত্যপণ্যের দাম কবে মানুষের নাগালে আসবে এমন প্রশ্নের উত্তরে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, এ প্রশ্নের উত্তর আমার জানা নেই। উত্তর জানতে হলে আমাকে আর্জেন্টিনা বা ব্রাজিলে যেতে হবে। আন্তর্জাতিক বাজারে দাম না কমা পর্যন্ত আমরা কিছুই করতে পারবো না। কলকাতায় খবর নিন, সেখানে কত দামে তেল বিক্রি হয়। মানুষকে বৈশ্বিক বাজারের অবস্থা অবশ্যই জানাতে হবে।

ডলারের দাম বাড়ায় সমস্যা তৈরির বিষয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, দুই বছর আমাদের আমদানি কম ছিল। এখন বাজার খুলে যাওয়ায় ক্যাপিটালে দুই বছরের চাপ পড়েছে একসাথে। সবকিছু মিলেই একটা প্রভাব পড়েছে। আমাদের বৈদেশিক রিজার্ভেও চাপ পড়েছে। গত দুই বছর আমদানি কমায় বেড়েছিল রিজার্ভ। এখন চাপ পড়ায় এ সমস্যা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

তিনি আরও বলেন, সঙ্কট সমগ্র বিশ্বে, এজন্য প্রধানমন্ত্রী বলেছেন সাশ্রয়ী হতে। এই সঙ্কট আমাদের কষ্ট দিচ্ছে। কিন্তু এখন আমাদের নতুন উৎস খুঁজতে হবে। আশা করছি, ভোজ্যতেল সংক্রান্ত সঙ্কট সামনে কেটে যাবে।

ভারত থেকে গম রফতানি প্রসঙ্গে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ভারত বাংলাদেশে গম রফতানি বন্ধ করেনি। যে নিষেধাজ্ঞা আছে তা বাংলাদেশের জন্য প্রযোজ্য না। এছাড়া বাংলাদেশে গমের যথেষ্ট মজুদও আছে। কিন্তু কিছু অসাধু ব্যবসায়ী এর সুযোগ নিচ্ছে।

পেঁয়াজ প্রসঙ্গে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, পেঁয়াজ নিয়ে এখনও চিন্তার কিছু হয়নি। আশার বিষয় পেঁয়াজের উৎপাদন অনেক বেড়েছে। এভাবে চললে ২০২৫ সাল নাগাদ আর পেঁয়াজ আমদানি করা লাগবে না। তাই পেঁয়াজ নিয়ে ভয়ের কিছু নেই।

বাণিজ্যমন্ত্রী আরও বলেন, বিপদ যখন বাড়ে তখন সবাইকে নিয়েই সে বিপদ মোকাবেলা করতে হয়। দুই-আড়াই বছরে রফতানি কম হয়েছে। এর জন্য এখন আমদানি বেড়েছে। যখন আমদানি কম হয়েছে তখন রিজার্ভ বেড়েছে। এখন যে রিজার্ভ আছে, তাতে ভয় পাওয়ার কিছু নেই। এরকমই রিজার্ভ থাকে সব সময়। তাই ঘাবড়ানোর কোনো কারণ নেই। এর সাথে শ্রীলংকার সাথে তুলনা করে কোনো লাভ নেই।

/এমএন





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply