বলিউডের বিখ্যাত কিছু ব্রেকআপ কন্ট্রোভার্সির আদ্যোপান্ত

|

ছবি: সংগৃহীত

সম্পর্ক থেকে বেরিয়ে আসার পর বেশিরভাগ তারকাই তাদের প্রাক্তন সম্পর্কে জনসমক্ষে বিশেষ কিছু বলেন না। মুখোমুখি দেখা হয়ে গেলেও অনেকক্ষেত্রেই একে অপরকে এড়াতেই করেন স্বাচ্ছন্দ্যবোধ। আবার বলিউডে এমন তারকাও আছেন, যারা বিচ্ছেদের পর সমস্ত রাগ এবং ক্ষোভ জনসমক্ষেই প্রকাশ করেছেন প্রাক্তনের ওপর।

এমন তারকার তালিকায় প্রথমেই নাম রয়েছে আসে একসময়কার হার্টথ্রব শিল্পা শেঠির। অভিনেতা অক্ষয় কুমারের প্রাক্তন প্রেমিকা ছিলেন শিল্পা। টুইঙ্কল খান্নার সঙ্গে বিয়ে করার আগে চুটিয়ে প্রেম করতেন শিল্পা-অক্ষয়। তারা বিয়ে করবেন বলেও কানাঘুষা শোনা যেত। কিন্তু হঠাৎই শিল্পাকে ছেড়ে টুইঙ্কলের সঙ্গে প্রেম শুরু করেন অক্ষয়। সেই রসায়ন প্রকাশ্যে আসতেই রেগে আগুন হন শিল্পা। তিনি দাবি করেন, অক্ষয় তাকে ঠকিয়েছেন। জনসমক্ষেই দুষতে শুরু করেন অক্ষয়কে।

সে সময় প্রকাশ্যেই শিল্পা অভিযোগ করেন, অক্ষয় আমাকে ব্যবহার করেছে। অন্য একজনকে পাওয়ার পর নিজের সুবিধামতো আমাকে জীবন থেকে বাদ দিয়েছে। সে ভবিষতে এর কর্মফল পাবে।

বলিউডে পা দেয়ার পরই অভিনেত্রী জ্যাকলিন ফার্নান্দেজের নাম জড়িয়ে পরে পরিচালক সাজিদ খানের সঙ্গে, কিন্তু শীঘ্রই তাদের বিচ্ছেদ হয়ে যায়। এরপরই সাজিদ জানান, জ্যাকলিন তাকে খুব বিরক্ত করতেন। আর সেটাই তাদের বিচ্ছেদের প্রধান কারণ। জ্যাকলিনের কাজে বাগড়া দেয়া স্বভাবের জন্য মন দিয়ে কাজ করতে পারছিলেন না তিনি। এমনকি হিম্মতওয়ালার খারাপ ব্যবসার জন্যও তিনি জ্যাকলিনকে দায়ী করেন সাজিদ।

শুধুই কি ক্ষোভ প্রকাশ! এক্ষেত্রে প্রীতি জিনতা যেন এগিয়ে আরও এক ধাপ। প্রাক্তন প্রেমিক নেস ওয়াদিয়ার বিরুদ্ধে থানা-পুলিশও করেছিলেন প্রীতি। পুলিশের কাছে অভিযোগ করে তিনি জানান, নেস নাকি তাকে হুমকি দিতে শুরু করেছিলেন।

প্রীতির অভিযোগ, নেস আমাকে দুনিয়া থেকে গায়েব করে দেয়ার ভয় দেখাতো। অনেকদিন মুখ বুজে সব সহ্য করেছি। কিন্তু মুম্বাইয়ে ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে নেস আমাকে মারধর করার পর আর চুপ থাকতে পারিনি।

কারিনা কাপুরের সঙ্গে বিচ্ছেদের পর তাকেও ছেড়ে কথা বলেননি হালের কাবির সিং শাহিদ কাপুর। জনসমক্ষে কারিনাকে পশুর সাথে তুলনা করেছিলেন শাহিদ। সেই মন্তব্যের জন্য সেসময় সমালোচিতও হয়েছিলেন শাহিদ ।

প্রকাশ্যে সাবেক স্ত্রী অমৃতা সিংয়ের ওপরে ক্ষোভ ঝেড়ে আলোচনায় এসেছিলেন পতৌদির নবাব সাইফ আলি খানও। ঠিক কী কারণে অমৃতার সাথে তার ছাড়াছাড়ি হয়েছিল? এমন প্রশ্নের জবাবে অমৃতা তার মা, তাকে ও তার বোনকে কটুক্তি করতেন বলে সাইফ দাবি করেছিলেন। বিষয়টি অসহ্য হয়ে দাঁড়ালে সম্পর্ক থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন বলে জানান সাইফ।

কঙ্গনা রানাওয়াত এবং হৃতিক রোশনের সম্পর্ক নিয়েও কম আলোচনা হয়নি বলিউডের অলিতেলিতে। সৃষ্টি হয়েছিল নানা বিতর্কেরও। তবে বিতর্ক ব্যক্তিগত আক্রমণে রূপ নেয় তাদের বিচ্ছেদের পর। তিক্ততা এতটাই মাত্রা ছাড়িয়েছিল যে হৃতিক মন্তব্য করেছিলেন, কঙ্গনার সঙ্গে প্রেম করার চেয়ে নাকি পোপের সঙ্গে প্রেম করা অনেক ভাল।

‘কুইন’ কঙ্গনার সঙ্গে নাম জড়িয়েছিল অধ্যয়ন সুমনের সাথেও। বিচ্ছেদ হওয়ার পর অধ্যয়নের দাবি, কঙ্গনা তার উপর ‘ব্ল্যাক ম্যাজিক’ করেছিলেন।

বলিউড তারকাদের এমন হুটহাট সম্পর্কে জড়ানো, বিচ্ছেদ এবং বিচ্ছেদ পরবর্তী কন্ট্রোভার্সি বলিউডে সবসময়ই আলোচনার বিষয়বস্তু। তারকাদের জীবন নিয়ে ভক্তদের আগ্রহ বলিউডে আলাদা করে যেন আরও একটি কন্ট্রোভার্সি ইন্ডাস্ট্রি।

/এসএইচ





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply