সমর্থন না, বলেছি পরিস্থিতি বুঝে খেলার জন্য; মুশফিকের রিভার্স সুইপ প্রসঙ্গে মুমিনুল

|

মুশফিকের রিভার্স সুইপ এখন দুশ্চিন্তার নাম।

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে কি আবারও রিভার্স সুইপ করতে দেখা যাবে মুশফিকুর রহিম? বিস্তর বিতর্ক আর সমালোচনার পরেও গেল প্রায় ১ বছরে এই শট খেলে মুশফিক আউট হয়েছেন চার বার। এমনকি অধিনায়কের সমর্থনের যেন টান পড়েছে! দক্ষিণ আফ্রিকায় মুশিকে সমর্থন দিলেও এবার আগের অবস্থান থেকে কিছুটা সরে এসেছেন মুমিনুল হক। সংবাদ সম্মেলনে মুশফিকের রিভার্স সুইপ প্রসঙ্গে বলেছেন, সমর্থন দেইনি। পরিস্থিতি অনুযায়ী খেলার জন্য বলেছি।

সময়টা যে খুব অনুকূলে রয়েছে মিস্টার ডিপেন্ডেবলের, তা নয়। তিন ফরম্যাটেই খেলা চালিয়ে গেলেও মুশফিকের ব্যাট হাসছে কদাচিৎ। তার ওপর সাম্প্রতিক সময় বোর্ড সভাপতির কথায় ছিল এই নির্ভরযোগ্য ব্যাটারকে ছাটাইয়ের ইঙ্গিত। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টেস্টে দলের প্রয়োজনের মুহূর্তে রিভার্স সুইপের মতো উচ্চাভিলাষী শট খেলে সমালোচনা কুড়িয়েছিলেন মুশফিক। তবুও তখন অধিনায়ক মুমিনুল হকের সমর্থন পেয়েছিলেন। তবে এবার আর হয়তো তা পাচ্ছেন না তিনি। সংবাদ সম্মেলনে মুমিনুল এবার বলেছেন, তিনি মুশফিককে সমর্থন জানাননি। বরং ম্যাচের পরিস্থিতি বুঝে শট খেলা গুরুত্বপূর্ণ, সেটাই মনে করিয়ে দিয়েছেন টেস্ট দলের অধিনায়ক।

সংবাদ সম্মেলনে মুমিনুল হক।

মুশফিকুর রহিমের ফর্ম নিয়ে দুশ্চিন্তায় নেই তেমন কেউ। যা ভাবাচ্ছে তা হলো নির্ভরযোগ্য এই ব্যাটারের অনির্ভরযোগ্য রিভার্স সুইপ! আর পরিসংখ্যান হয়তো এই শট খেলতে নতুন করে ভাবাবে খোদ মুশফিককেই। এ পর্যন্ত ১০৭ বার রিভার্স সুইপ খেলে ৩৮টি বাউন্ডারি হাঁকিয়েছেন মুশফিক। আউট হয়েছেন ৯ বার। কিন্তু মুশফিকের অন্যতম প্রিয় এই শট গেল কয়েক বছরে রীতিমতো পরিণত হয়েছে মরণ ফাঁদে। আগে শতকরা ৪০ ভাগ রিভার্স সুইপকে চারে পরিণত করতে পারতেন মুশি। এখন সেই কনভার্সন রেট নেমে এসেছে ১১ শতাংশে। শুধু তাই নয়, ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারির পর এই শটেই তিনি আউট হয়েছেন ৪ বার!

তবু অবশ্য নিজের উপর আস্থা হারাননি মুশফিক। এরই ধারাবাহিকতায় দক্ষিণ আফ্রিকায় রিভার্স সুইপে আউট হয়ে দলের বিপদ বাড়িয়েছিলেন। তবু অধিনায়কের সমর্থন ছিল সে সময়। কিন্তু চট্টগ্রাম টেস্টের আগে পাল্টে গেছে সেই চিত্র।

কাভার ড্রাইভে ইতিহাসের অন্যতম সেরা ব্যাটার শচীন টেন্ডুলকারও এক সময় বার বার আউট হচ্ছিলেন। কিন্তু অস্ট্রেলিয়া সফরের মাঝপথেই নিজেকে বদলে নেন মাস্টার ব্লাস্টার শচীন টেন্ডুলকার। নিজের অন্যতম প্রিয় শট কাভার ড্রাইভ একটিবারও না খেলে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিডনি টেস্টে খেলেছিলেন ২৪১ রানের সেই মহাকাব্যিক ইনিংস। তাই প্রশ্ন আসছে প্রাসঙ্গিকভাবেই, দলের জন্য শচীন বদলাতে পারলে মুশফিকুর রহিম কেন নয়!

আরও পড়ুন: প্রথম টেস্টে খেলবেন সাকিব, নিশ্চিত করলেন মুমিনুল

/এম ই





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply