হঠাৎ কেন ইস্তফা দিলেন বিপ্লব দেব?

|

ছবি: সংগৃহীত

মেয়াদপূর্তির ১ বছর আগেই আচমকা পদত্যাগ করেছেন ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব। রাজ্যপাল এসএন আরিয়ার কাছে দেয়া পদত্যাগপত্রে বিপ্লব লিখেছেন, তাকে যেন শনিবারই (১৪ মে) মুখ্যমন্ত্রীর পদ থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়। এ ঘটনায় শুরু হয়েছে নানা জল্পনা-কল্পনা, কেন হঠাৎ ইস্তফা দিলেন বিপ্লব দেব। ঘুরেফিরে আসছে আরেকটি প্রশ্ন, ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রীর পদে কে আসছেন এবার।

বিজেপি সূত্রে জানা গেছে, স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করেননি বিপ্লব। বরং, কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের নির্দেশেই তিনি রাজ্যপালকে পদত্যাগপত্র দিয়েছেন তিনি। সেই সাথে জানা গেছে, বিজেপি পরিষদীয় দলের বৈঠক বসতে চলেছে আজই। ধারণা করা হচ্ছে, কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব ইতোমধ্যেই পরবর্তী মুখ্যমন্ত্রীর নাম ঠিক করে ফেলেছে। পরিষদীয় বৈঠকে সেটিই চূড়ান্ত হবে।

বিপ্লব দেবের পদত্যাগের পেছনে বিভিন্ন সময়ে তার করা মন্তব্যের ভূমিকা থাকতে পারে বলে ইঙ্গিত করা হয়েছে পশ্চিমবঙ্গের গণমাধ্যম আনন্দবাজার পত্রিকায়। বলা হয়েছে, মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার পরে একাধিকবার বিজেপির অস্বস্তির কারণ হয়েছেন তিনি। সেই সাথে, বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে তার নানা মন্তব্য থেকে। মুখ্যমন্ত্রীর পদে থাকবেন কি না, তা নির্ধারণ করতে গণভোট দরকার বলেও মন্তব্য করেছিলেন বিপ্লব দেব। সে সময় তার ওপর নাখোশ হয় বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। তবে তার হঠাৎ পদত্যাগের কারণ এখনও স্পষ্ট হয়নি।

তবে পশ্চিমবঙ্গের রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের ধারণা, আগামী বছর অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া ত্রিপুরা বিধানসভা নির্বাচনে বিপ্লবকে দলীয় মনোনয়ন দিতে চাইছে না বিজেপি। বিপ্লব দেবকে মুখ্যমন্ত্রী রেখে নির্বাচনে গেলে প্রতিষ্ঠানবিরোধী জনমত অধিক জোরালো হতে পারে বলেও শঙ্কা থাকতে পারে বিজেপি শিবিরে। তাই, বিপ্লব দেবকে সরিয়ে কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের মতামতের প্রতিফলন ঘটবে, এমন কোনো নতুন মুখ নিতে আসতে চাইছে হয়তো বিজেপি।

আরও পড়ুন: ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের হঠাৎ পদত্যাগ

/এম ই





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply