আখাউড়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন

|

আখাউড়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. আবুল কাশেম ভূঁইয়া।

আখাউড়া প্রতিনিধি:

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. আবুল কাশেম ভূঁইয়ার বিরুদ্ধে ব্যাপক অনিয়ম-দুর্নীতি ও মাদকের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন করেছেন তারই পরিষদের সকল সদস্য ও উপজেলার পাঁচ ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বারগণ।

শুক্রবার (১৩ মে) উপজেলার মোগড়া ইউনিয়ন কার্যালয়ে উপজেলা পরিষদের ৮ জন সদস্যসহ ইউনিয়নের মেম্বার ও স্থানীয় ভুক্তভোগীরা এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন। এসময় উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কাশেম ভূঁইয়ার পদত্যাগের দাবি জানিয়েছেন পরিষদের সদস্যরা।

সংবাদ সম্মেলনে আখাউড়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কাশেম ভূঁইয়ার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ, এডিবি, জাইকা, টিআর-কাবিখা, মৌলিক থোক বরাদ্দ ছাড়াও সরকারি বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়নে ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতির মাধ্যমে বিপুল অঙ্কের টাকা আত্মসাৎ করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এসময় চেয়ারম্যানের পরিবারের বিরুদ্ধে মাদক ব্যবসার অভিযোগও আনা হয়েছে।

উপজেলা পরিষদের ৮ সদস্যসহ ইউনিয়নের মেম্বার ও স্থানীয় ভুক্তভোগীরা এ সংবাদ সম্মেলন করেন।

সদস্যরা বলেন, নীতিমালা না মেনে পরিষদের ৮ জন সদস্যকে উপেক্ষা করে এককভাবে প্রকল্প বাস্তবায়ন করছেন উপজেলা চেয়ারম্যান। অনেক প্রকল্পে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের সভাপতি বানিয়ে নিম্নমানের কাজ করে কিংবা কাজ না করেও সরকারি টাকাসহ বিভিন্ন প্রকল্প থেকে অন্তত দুই কোটি টাকা আত্মসাৎ করছেন। যা ওই সদস্যরা অবিহিত নয় বলেও সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়।

এ ঘটনায় সম্প্রতি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রশাসক ও দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন ওই উপজেলা পরিষদের স্বাক্ষরিত ৮ জন সদস্য।

উপজেলা চেয়ারম্যান ইতিপূর্বে এলাকায় যে সকল প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছেন ওই প্রকল্পগুলো দুদকের মাধ্যমে তদন্ত সাপেক্ষে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানিয়েছেন পরিষদের সদস্যরা। সংবাদ সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন আখাউড়া পৌরসভার মেয়র তাকজিল খলিফা কাজল।

এসময় উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মুরাদ হোসেনসহ চার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ছাড়াও ইউনিয়নের ৬০ জন মেম্বার এবং মহিলা মেম্বারগণ উপস্থিত ছিলেন। তবে মনিয়ন্দ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাহবুব আলম চৌধুরী দীপক ও উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নাসরীন সফিক আলেয়া উপস্থিত না থাকলেও সংবাদ সম্মেলনে মোবাইল ফোনে একাত্মতা ঘোষণা করে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের পদত্যাগ দাবি জানান।

/এডব্লিউ





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply