শিশু ধর্ষণের অভিযোগে ইমামকে গ্রেফতারের দাবিতে বিক্ষোভ-অবরোধ এলাকাবাসীর

|

অভিযুক্ত ইমামের ফাঁসি চেয়ে এলাকাবাসীর মানববন্ধন।

স্টাফ করেসপনডেন্ট, রংপুর:

চারদিনেও রংপুর মহানগরীর মাহিগঞ্জে তিন বছরের শিশুকে ধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্ত মসজিদের ইমাম ও মাদরাসার মুহতামিম মাহফুজুর রহমান (৩০) গ্রেফতার না হওয়ায় ফুঁসে উঠেছেন এলাকাবাসী। তাকে গ্রেফতারের দাবিতে সোমবার (৯ মে) দুপুরে বিক্ষোভ-মানববন্ধন এবং সড়ক অবরোধ করে ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দিয়েছে ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী। প্রভাবশালী হওয়ায় পুলিশ তাকে গ্রেফতার করছে না বলেও অভিযোগ তাদের। অভিযুক্ত মাহফুজুর রহমান মাহিগঞ্জ থানার কল্যানী ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের তৈয়ব গ্রামের মফিজার রহমানের পুত্র।

ইমাম মাহফুজকে গ্রেফতারের দাবিতে সোমবার বেলা সাড়ে ১১টায় কল্যানী ইউনিয়নের বড়দরগা বাজারে মানববন্ধন এবং বিক্ষোভ হয়। এতে অংশ নেয় ওই এলাকার কয়েকশ শিক্ষার্থী, নারী ও পুরুষ। বিক্ষোভকারীরা এ সময় রংপুর-পাওটানা সড়ক অবরোধ করে রাখে এবং ২৪ ঘণ্টার মধ্যে মাহফুজকে গ্রেফতারের দাবি জানায়। পরে মাহিগঞ্জ থানার ওসি মোস্তাফিজার রহমান সেখানে গিয়ে মাহফুজকে গ্রেফতারের আশ্বাস দিলে আধাঘণ্টা পর অবরোধ তুলে নেন এলাকাবাসী।

এই কর্মসূচিতে বক্তারা বলেন, মাহফুজ এর আগেও পীরগাছার গুঞ্জরখাঁ গ্রামে অবস্থিত তার ভাইয়ের প্রতিষ্ঠিত বাইতুস সালাম মাদ্রাসায় শিক্ষকতা করার সময় ৮ বছরের এক শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ চেষ্টা মামলায় কারাগারে ছিলেন। পরে মাহফুজ কারাগার থেকে বেরিয়ে এসে তার এক আত্মীয় প্রভাবশালী মাওলানার সহায়তায় শিক্ষার্থীর পরিবারের ওপর চাপ সৃষ্টি করে সেই মামলা আপোষ করে নেন। মাস দুয়েক আগেও ভাতিজার অনুপস্থিতিতে তার ঘরে ঢুকে ভাতিজা বউকে কুপ্রস্তাব দিয়েছিলেন তিনি। এটা নিয়েও এলাকায় খুব প্রতিক্রিয়া হয়েছিল। কিন্তু মাহফুজ এ ধরনের কর্মকাণ্ড করার পরেও এখনও ধরাছোঁয়ার বাইরে আছে।

রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ-আরপিএমপির অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিবি ও মিডিয়া) মো. সাজ্জাদ হোসেন জানান, ঘটনা জানার সাথে সাথেই আমরা মামলা নিয়েছি এবং তাকে গ্রেফতারে সাড়াশি অভিযান চলছে। এলাকাবাসী মানববন্ধন করে যেসব দাবি জানিয়েছে সেগুলোও আমরা তদন্ত করছি। আমরা ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা করতে চাই।

এদিকে, মাহফুজের স্ত্রী সাথি বেগম সংবাদ সম্মেলন করে দাবি করেছেন, তার স্বামী নির্দোষ এবং ষড়যন্ত্রের শিকার। তাকে এর আগেও ফাঁসানো হয়েছে। এবারও তাকে ফাঁসানো হয়েছে।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার (৫ মে) সন্ধ্যায় চকলেট খাওয়ানোর প্রলোভন দেখিয়ে প্রতিবেশী ওই শিশুকে নিজের ঘরে নিয়ে ধর্ষণ করে পালিয়ে যায় মাহফুজুর রহমান। এ ঘটনা মামলা দায়েরের চারদিন পরও ইমাম মাহফুজকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

এসজেড/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply