মারামারির পরও টোল না দিয়েই নববধূকে নিয়ে চলে গেলো এমপির ছেলের গাড়ি বহর

|

পায়রা সেতু টোল প্লাজা (ফাইল ছবি)।

স্টাফ রিপোর্টার, পটুয়াখালী:

পায়রা সেতুর টোল চেয়ে বিয়ের গাড়ি থামিয়ে রাখার অপরাধে টোল আদায়কারীদের মারধর করে টোল না দিয়েই নববধূ ও বিয়ের গাড়ীবহর নিয়ে চলে গেলেন পটুয়াখালীর সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্যের ছেলে। পরবর্তীতে এ নিয়ে দুপক্ষের মধ্যে হাতাহাতি ও মারামারির ঘটনায় অন্তত পাঁচজন আহত হয়েছেন।

জানা গেছে, গত বৃহস্পতিবার (৫ মে) সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে বরিশাল-পটুয়াখালী মহাসড়কের পায়রা সেতুর (লেবুখালী) টোল প্লাজায় এ ঘটনা ঘটলেও এখন পর্যন্ত থানায় কেউ কোনো অভিযোগ দায়ের করেননি।

এ ব্যাপারে দুমকী থানার ওসি আবদুস সালাম জানান, পুরো বিষয়টি আমরা পর্যবেক্ষণ করছি।

তবে পটুয়াখালীর সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য কাজী কানিজ সুলতানা হেলেন জানান, আমি ঘটনার সময় যেহেতু ছিলাম না সেহেতু আমার ধারণা টোল পরিশোধের কোনো বিষয় না। আসল ঘটনা হলো যারা টোল আদায় করে তারা সন্ত্রাসী প্রকৃতির, ডাকাত প্রকৃতির, তাদের ভাব দেখলেই সেটা বুঝা যায়।

এদিকে, পটুয়াখালীর সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্যের এ বক্তব্য সম্পূর্ণই ভিত্তিহীন বলে উল্লেখ করে পায়রা সেতুর টোল প্লাজায় দায়িত্বরত ম্যানেজার মো. আসাুজ্জামান জানান, সিসি ক্যামেরার ফুটেজে সুস্পষ্টভাবে দেখা যায় যে, এমপির ছেলে ও তার বন্ধুরা আমার স্টাফদের কীভাবে মারধর করেছে। শুধুমাত্র গাড়ির জন্য টোল ভাড়া চাওয়ার অপরাধেই এ মারধর।

সিসিটিভির ফুটেজ সূত্র ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, ঘটনার সময় এমপির ছেলে তাজ তালুকদার নববধূকে নিয়ে সেতু পার হতে গেলে সেতুর দক্ষিণ প্রান্তের টোল প্লাজায় তাদের গাড়ি দাঁড় করায় কর্তৃপক্ষ। তখন এমপির ছেলে তার মায়ের বরাত দিয়ে বলেন যে, ভাড়া দেয়া যাবে না।

এ নিয়ে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে এমপির ছেলে টোল প্লাজার সুপারভাইজার রাসেলকে মারধর করে আহত করেন।

পরে পটুয়াখালী থেকে লোকজন গিয়ে দ্বিতীয় দফা টোলের স্টাফদের মারধর করে। ঘটনার এক পর্যায়ে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

/এসএইচ





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply