ভয়াবহ ধূলিঝড়ের কবলে বাগদাদ

|

ভয়াবহ ধূলিঝড়ের কবলে ইরাকের রাজধানী বাগদাদ। ঝড়ের কারণে প্রায় অচল হয়ে পড়েছে জীবনযাত্রা। হাসপাতালগুলোতে বাড়ছে শ্বাসকষ্টজনিত রোগীর সংখ্যা। এরই মধ্যে একজনের মৃত্যুও হয়েছে। দেশটির আবহাওয়া বিভাগ বলছে, এক মাসের মধ্যে ৭ বার মরুঝড় দেখলো মধ্যপ্রাচ্যের দেশটি। বলা হচ্ছে টানা খরার কারণেই এমন দুর্যোগ।

ইরাকের বাজধানী বাগদাদ ও এর আশপাশেরর আরও কয়েকটি শহর ঢেকে গেছে ধুলোবালিতে। প্রয়োজনীয় কাজেও বের হতে পারছে না বাসিন্দারা। অনেকটা থমকে গেছে সেখানকার জীবনযাত্রা। এক কফি বিক্রেতা বলছিলেন, কাপে কফি ঢালার পর সেটা আর মুখে দিতে পারেনি ক্রেতারা। সব ধুলায় ভরে গেছে। আমার ব্যক্তিগত জীবনেও প্রভাব পড়েছে। জামা কাপড়ও ধুয়ে দিতে পারছি না। গেলো তিন বছর এখানে কোনো বৃষ্টি হয় না। এ কারণেই এমন ভয়াবহ ধূলিঝড় হচ্ছে।

গেলো কয়েকদিন ধরেই এমন দুর্যোগ পরিস্থিতির মধ্যদিয়ে চলতে হচ্ছে সবাইকে। ধূলিঝড় শুরু হওয়ার পর থেকেই শরীরে নানা সমস্যা নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছে হাজার হাজার মানুষ। একজন স্বাস্থ্যকর্মী জানাচ্ছেন, বাগদাদে ধূলিঝড়ের পর থেকেই হাসপাতালে রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। বেশিরভাগ রোগীই আসছে অ্যালার্জি এবং শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা নিয়ে। সবগুলো হাসপাতালে প্রায় একই চিত্র। এ জন্য বাড়তি ডিউটি করতে হচ্ছে চিকিৎসকদের।

দেশটির আবহাওয়া বিভাগ বলছে, এক মাসের মধ্যে ৭ বার এই ধরনের ঝড় হলো ইরাকে। আর এ ধূলিঝড়ের সূত্রপাত রামাদি এবং নাজাফ মরুভূমি।

/এডব্লিউ





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply