দেশে বিরাট এক সমস্যার নাম অবৈধ বিদেশি

|

দেশে বিরাট এক সমস্যার নাম অবৈধ বিদেশি। এশিয়া ও আফ্রিকার হাজার হাজার মানুষ কাজের নামে বা ট্যুরিস্ট ভিসায় এসে অবৈধভাবে থেকে যাচ্ছেন। গোয়েন্দা সংস্থার হিসাবে, এ সংখ্যা প্রায় ১৩ হাজার। বাস্তবে আরও বেশি হতে পারে। সবচেয়ে বড় সমস্যা, অবৈধ বিদেশিরা জড়িয়ে পড়ছে ভয়ঙ্কর সব অপরাধে। এদের আটক করতেও হিমশিম খেতে হয় পুলিশকে।

এমনই একজন হেনরি ওসিতা ওকেচুকু। মাত্র কয়েকমাস থাকার কথা বলে বাংলাদেশে অবৈধভাবে আছেন ৪ বছর। বিদেশি বন্ধু সেজে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়া চক্রের হোতা হেনরি, দুই বছর আগে সিআইডির হাতে গ্রেফতার হন। জামিনে বেরিয়ে জড়ান একই কাজে। সপ্তাহখানেক আগে আবারও ধরা পড়েন ডিবি পুলিশের কাছে।

ডিবি কার্যালয়ে তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে নিয়ে আসা হয় আরও বেশ কয়েকজনকে, তারা সবাই হেনরির বন্ধু। কেউ পড়াশোনার কথা বলে, কেউ কাজের জন্য বা ফুটবল খেলতে, আবার কেউ পর্যটক হয়ে এসেছিলেন বাংলাদেশে। দেশে না ফিরে কেউ কেউ জড়িয়ে গেছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ চক্রে। সরকারি হিসাবে, দেশে প্রায় ১৩ হাজার অবৈধ বিদেশির মধ্যে কারাগারে আছে ৯০০।

অবৈধদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ভারতের নাগরিক। আছে পাকিস্তান, ক্যামেরুন, ফিলিপাইন, আফগানিস্তান, দক্ষিণ কোরিয়া, চীন, শ্রীলঙ্কা, নাইজেরিয়া, সোমালিয়াসহ বিভিন্ন দেশের নাগরিক। ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের উপ-কমিশনার মশিউর রহমান জানালেন, অন-অ্যারাইভাল ভিসার সুবিধা নিয়ে অবৈধ অভিবাসনের সুযোগ সবচেয়ে বেশি নেয় আফ্রিকানরা। রাজধানীর উত্তরা, আশকোনা ও খিলক্ষেত এলাকায় বাসা ভাড়া নিয়ে বা হোটেলে অবস্থান করেন তারা। নিজেদের ফুটবলার বা বায়িং হাউসের ব্যবসায়ী বলে পরিচয় দিয়ে জড়িয়ে পড়েন অপরাধে।

অবৈধ কোনো বিদেশি আটক হলে সে দেশের দূতাবাস বা চ্যান্সেরি অফিসকে জানানো হয়। কিন্ত আফ্রিকান অনেক দেশের অফিসই বাংলাদেশে নেই। আর জানানো হলেও আটককৃতদের ফেরত নিতে আগ্রহও দেখায় না অনেক দেশ। সবমিলে এদের নিয়ে অনেকটা গ্যাড়াকলে বাংলাদেশ সরকার। যদিও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল জানালেন, সম্প্রতি ১২ দেশের ৭৬ নাগরিককে নিজ দেশে ফেরত পাঠানো হয়েছে।

অবৈধ বিদেশিদের নিয়ে উদ্বেগ জানিয়েছে আইন শৃঙ্খলা সম্পর্কিত মন্ত্রিসভা কমিটি। জরুরি ভিত্তিতে ডাটাবেজ করে তাদের ফেরত পাঠানোর পরামর্শও দিয়েছে তারা।

/এডব্লিউ





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply