মেঘনার তীরে বাড়ছে ভিটেমাটি হারানো মানুষের সংখ্যা

|

বর্ষার আগেই ভাঙনের কবলে পড়েছে মেঘনা নদীর পাড়। এখনও হুমকির মুখে ফসলি জমিসহ বহু স্থাপনাও। নদীর তীর রক্ষা বাঁধ নির্মাণ এখন পর্যন্ত না হওয়ায় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের গাফিলতি ও অব্যবস্থাপনাকে দায়ী করছেন স্থানীয়রা। ভাঙন রোধে দ্রুত পদক্ষেপ নেয়ার আশ্বাস পানি উন্নয়ন বোর্ডের।

গত এক সপ্তাহে ভাঙনের তীব্রতা সবচেয়ে বেশি লক্ষ্মীপুরের রামগতি ও কমলনগর উপজেলায়। বসতভিটা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ বহু স্থাপনা নদীগর্ভে গেছে। নিঃস্ব শতাধিক পরিবার, হুমকির মুখে ফসলি জমি।

স্থানীয়দের অভিযোগ, তীর রক্ষার জন্য গতবছর একনেকে ৩ হাজার ১শ কোটি টাকার একটি প্রকল্পের অনুমোদন হয়েছে। চলতি বছর জানুয়ারিতে কাজের উদ্বোধনও করেন পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী। কিন্তু এরপর থেকে দৃশ্যমান অগ্রগতি নেই।

লক্ষ্মীপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী ফারুক আহমেদ বলছেন, ঠিকাদার বালু আনতে না পারায় কাজ বন্ধ রয়েছে। শীঘ্রই কাজ শুরু করার আশ্বাসও দিলেন তিনি।

এদিকে, রামগতি থেকে কমলনগর পর্যন্ত মেঘনা নদীর ৩২ কিলোমিটার অংশে বাঁধ নিমার্ণের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল, মানবন্ধনসহ নানা কর্মসূচি করছে লক্ষ্মীপুরবাসী।

/এডব্লিউ





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply