নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের বোর্ড অব ট্রাস্টিজের ৫ সদস্যের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

|

ছবি: সংগৃহীত

নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের বোর্ড অফ ট্রাস্টিজ এর চেয়ারম্যান, ৪ সদস্য ও আশালয় হাউজিং অ্যান্ড ডেভেলপার্স লিমিটেডের এমডিসহ মোট ৬ জনের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে মামলা করেছে দুদক।

বৃহস্পতিবার (৫ মে) দুদকের উপপরিচালক ফরিদ আহমেদ পাটোয়ারী ঢাকার সমন্বিত জেলা কার্যালয়ে মামলাটি করেন।

মামলার আসামিরা হলেন, এনএসইউ’র বোর্ড অব ট্রাস্টিজের চেয়ারম্যান আজিম উদ্দিন আহমেদ, সদস্য এম এ কাশেম, বেনজীর আহমেদ, রেহানা রহমান ও মোহাম্মদ শাজাহান এবং বেসরকারি আবাসন সংস্থা আশালয় হাউজিং অ্যান্ড ডেভেলপার্স লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আমিন মো. হিলালী।

মামলার এজাহারে বলা হয়, বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেট, বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন, শিক্ষা মন্ত্রণালয় অর্থাৎ সরকারের অনুমোদনকে পাশ কাটিয়ে বোর্ড অব ট্রাস্টিজের কতিপয় সদস্যের অনুমোদনের মাধ্যমে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্যাম্পাস ডেভেলপমেন্টের নামে ৯০৯৬.৮৮ ডেসিমেল জমির ক্রয়মূল্য বাবদ ৩০৩ কোটি ৮২ লাখ ১৩ হাজার ৪৯৭ টাকা অতিরিক্ত অর্থ অপরাধজনকভাবে প্রদান/গ্রহণ করা হয়েছে। অর্থাৎ বিশ্ববিদ্যালয় তহবিলের টাকা আত্মসাতের হীন উদ্দেশে কম দামে জমি কেনা সত্ত্বেও বেশি বেশি দাম দেখিয়ে প্রথমে বিক্রেতার নামে টাকা প্রদান করেন (অভিযুক্তরা), পরবর্তীতে বিক্রেতার নিকট থেকে নিজেদের লোকের মাধ্যমে নগদ চেকের মাধ্যমে টাকা উত্তোলন করে আবার নিজেদের নামে এফডিআর করে রাখেন এবং পরবর্তীতে আবার নিজেরা উক্ত এফডিআরের অর্থ উত্তোলন করে আত্মসাৎ করেন। অর্থাৎ অবৈধ অপরাধলব্ধ আয়ের অবস্থান গোপনের জন্য উক্ত অর্থ হস্তান্তর, স্থানান্তর মাধ্যমে মানিলন্ডারিংয়ের অপরাধও সংঘটন করেন। উক্ত অপরাধলব্ধ অর্থ স্থানান্তর, রূপান্তরের মাধ্যমে হস্তান্তরপূর্বক অবস্থান গোপন করে মানিলন্ডারিংয়ের মাধ্যমে শাস্তিযোগ্য অপরাধ করায় এবং বেআইনি কার্যকলাপ সংঘটিত করে ক্ষমতার অপব্যবহারের মাধ্যমে অপরাধজনক বিশ্বাসভঙ্গ করে বিশ্ববিদ্যালয় তথা সরকারি অর্থ আত্মসাৎ করে নিজেরা অন্যায়ভাবে লাভবান হয়েছেন এবং উক্ত বেআইনি কার্যক্রম করার ক্ষেত্রে প্রতারণা ও জালজালিয়াতির আশ্রয় গ্রহণপূর্বক কমিশন বা ঘুষের আদান প্রদান করে শাস্তিযোগ্য অপরাধ করেছেন।

ইউএইচ/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply