প্যান্ডোরা পেপার্সে এলো আরও ৩ বাংলাদেশির নাম

|

ছবি: সংগৃহীত

করস্বর্গে গোপন বিনিয়োগ রয়েছে এমন ব্যক্তিদের পরিচয় উন্মোচন ও বিনিয়োগের তথ্য ফাঁস করা প্যান্ডোরা পেপার্সের তালিকায় এবার নাম এসেছে আরও তিন বাংলাদেশির। বিশ্বজুড়ে অর্থনৈতিক কেলেঙ্কারির গোমর ফাঁস করা এই সাড়া জাগানো নথিতে এ নিয়ে বাংলাদেশের ঠিকানা ব্যবহার করে অফশোর কোম্পানি খোলা ব্যক্তির সংখ্যা দাঁড়াল ১১।

মঙ্গলবার (৩ মে) এ তথ্য প্রকাশ করেছে অনুসন্ধানী সাংবাদিকদের আন্তর্জাতিক সংগঠন ইন্টারন্যাশনাল কনসোর্টিয়াম অব ইনভেস্টিগেটিভ জার্নালিস্টস (আইসিআইজে)। মূলত বিদেশে গোপন সম্পদ রয়েছে এমন ব্যক্তিদের পরিচয় উন্মোচন করতেই যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন ডিসিভিত্তিক আন্তর্জাতিক পর্যায়ে অনুসন্ধানী সাংবাদিকদের সংগঠন আইসিআইজে ‘প্যান্ডোরা পেপার্স’ তৈরি করেছে।

নতুন তালিকায় আসা বাংলাদেশিরা হলেন রাজধানীর বারিধারার ডিওএইচএসের এস হেদায়েত উল্লাহ, এস রুমি সফিউল্লাহ এবং সিলেটের শাহজালাল উপশহরের স্প্রিং গার্ডেনের বাসিন্দা শাহিদা বেগম শান্তি। এর মধ্যে হেদায়েত ও সফিউল্লাহ একই পরিবারের সদস্য।

আইসিআইজের তথ্য বলছে, একই ঠিকানা ব্যবহার করা এস হেদায়েত উল্লাহ ও এস রুমি সফিউল্লাহ হংকংয়ের ট্রান্সগ্লোবাল কনসাল্টিং (এইচকে) লিমিটেড নামক একটি অফশোর কোম্পানি খুলেছেন। প্যান্ডোরা পেপার্সে তাদের বর্তমান ঠিকানা উল্লেখ করা হয়েছে ঢাকা নগরীর বারিধারা ডিওএইচএস এর নর্দার্ন রোডের বাড়ি নং ১০৫, ৩/এফ। অন্যদিকে, শাহিদা বেগম শান্তির ঠিকানা সিলেটের শাহজালাল উপশহরের স্প্রিং গার্ডেন টাওয়ারের জি ব্লকের সপ্তম তলার ৩০৭৭ নং অ্যাপার্টমেন্ট। শাহিদা বেগম শান্তির অফশোর কোম্পানির নাম জাস লিমিটেড।

নতুন তালিকায় পাঁচটি নামের উল্লেখ থাকলেও ব্যক্তির অস্তিত্ব মূলত তিনটি। নামগুলো হলো এস হেদায়েত উল্লাহ, এস রুমি সফিউল্লাহ, সাইফুল্লাহ এস রুমি, উল্লাহ এস হেদায়েত, শাহিদা বেগম শান্তি। এর মধ্যে এস রুমি সফিউল্লাহ ও সাইফুল্লাহ এস রুমি মূলত একই ব্যক্তি। একইভাবে, এস হেদায়েত উল্লাহ ও উল্লাহ এস হেদায়েতও একজন ব্যক্তি।

এর আগে, গত ৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশের সঙ্গে সংযুক্ত নামের তালিকায় আট ব্যক্তির নাম প্রকাশ করা হয়। তারা সবাই বাংলাদেশের ঠিকানা ব্যবহার করে ব্রিটিশ ভার্জিন আইল্যান্ডে কোম্পানি নিবন্ধন করেছেন বলে বেরিয়ে এসেছিল নথিতে। সে সময় প্যান্ডোরা পেপার্সে নাম এসেছিল নিহাদ কবির, মোহাম্মদ ভাই, ইসলাম মঞ্জুরুল, সাইদুল হুদা চৌধুরী, অনিতা রানী ভৌমিক, সাকিনা মিরালি, ওয়াল্টার পোলাক ও ড্যানিয়েল আর্নেস্টো আইউবাত্তি।

উল্লেখ্য, দেশ-বিদেশের সাংবাদিকদের করা চাঞ্চল্যকর তদন্তমূলক রিপোর্টকে বলা হয় ‘প্যান্ডোরা পেপার্স’। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের প্রভাবশালী ব্যক্তিত্বদের গোপন সম্পদ ও লেনদেন ফাঁস করা হয় এই নথিপত্রে। মূলত এই সব প্রভাবশালী ব্যক্তিরা কীভাবে নিজেদের সম্পদ বিদেশি ব্যাঙ্কে অ্যাকাউন্ট খুলে সরিয়েছেন, তা তুলে ধরা হয় প্যান্ডোরা পেপার্সে।

আরও পড়ুন: প্যান্ডোরা পেপার্সে পুতিনের ঘনিষ্ঠ বান্ধবীর নাম

/এম ই





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply