বিমানবন্দরে জঙ্গি ঘায়েলের দুর্দান্ত এক মহড়া, লুটিয়ে পড়লো ৩ জন

|

নিরাপত্তারক্ষীদের নির্দেশ অমান্য করে গাড়িটি সজোরে পেরিয়ে গেল কলকাতা বিমানবন্দরের টোল প্লাজা। সোজা উঠে যায় ডিপারচারে যাওয়ার সেতুতে। টোল প্লাজার সামনে থাকা সিআইএসএফের দুই জওয়ান সঙ্গে সঙ্গে ওয়াকিটকিতে সতর্ক করেন সহকর্মীদের। সেতুটি ইংরেজি ‘ইউ’-এর মতো বাঁক নিয়ে টার্মিনালের সামনে পৌঁছেছে। বাঁ দিকে প্রথম গেটের আগে সিআইএসএফের চৌকি। ভিতরে স্বয়ংক্রিয় রাইফেল হাতে জওয়ান। চৌকির সামনে রাখা গার্ড রেল। যা দিয়ে আটকে দেওয়া যায় রাস্তা।

ওয়াকিটকিতে বার্তা পেয়েই ওই চৌকির জওয়ানেরা সঙ্গে সঙ্গে গার্ড রেল দিয়ে আটকে দেন রাস্তা। মুহূর্তে নিয়ে নেন পজিশন। গাড়িটি ততক্ষণে চলে এসেছে চৌকির কাছে। বাধা পেয়ে গার্ড রেলের সামনেই দাঁড়িয়ে যায় সেটি। গাড়ি থেকে লাফিয়ে নেমে পড়েন তিন যুবক। পিঠে বড় ব্যাগ। হাতে একে ৪৭ এবং ৯ এমএম পিস্তল। গাড়ির আড়ালে গিয়ে তাঁরা গুলি ছুড়তে থাকেন। পাল্টা গুলি চালাতে শুরু করেন জওয়ানেরাও। ততক্ষণে খবর পেয়ে টার্মিনালের সামনে থেকে চৌকির সামনে চলে এসেছেন ‘কুইক রিঅ্যাকশন টিম’-এর জওয়ানেরা।

সোমবার সকাল সাড়ে ১১টায় ওই গুলির লড়াই চলার সময়ে বন্ধ করে দেওয়া হয় টার্মিনালের দোতলায় গাড়ি নিয়ে ওঠার একমাত্র রাস্তাটি। বিমান ধরতে আসা যাত্রীরা আটকে পড়েন টোল প্লাজার আগে। তবে, মিনিট সাতেকের মধ্যেই ‘ঘায়েল’ করে ফেলা হয় তিন জঙ্গিকে। তাদের দেহ যেখানে ছিটকে পড়ে, তার কাছেই পড়েছিল পিঠের দু’টি ব্যাগ। প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত কুকুর শুঁকে জানিয়ে দেয়, ব্যাগে বিস্ফোরক আছে। বিমানবন্দরের নিরাপত্তার জন্য আনা আধুনিক ‘মিনি রিমোটলি অপারেটেড ভেহিক্যাল’-এর সাহায্যে ব্যাগ দু’টিকে নিরাপদ দূরত্বে সরানো হয়। তার পরে যাত্রীদের জন্য খুলে দেওয়া হয় রাস্তা।

এ পুরোটাই ছিল আচমকা জঙ্গি হামলা রুখে দেওয়ার মহড়া। বিমানবন্দরের আচমকা জঙ্গি হামলা রুখতে সিআইএসএফ কতটা তৈরি, মূলত তা দেখার জন্যই এতো আয়োজন। জঙ্গি সেজেছিলেন যে তিন জন, তারা বিমানবন্দরেরই নিরাপত্তারক্ষী।
তাদের কাছে যে একে ৪৭ রাইফেল এবং ৯ এমএম পিস্তল ছিল, সেগুলি আসল হলেও গুলি ছিল নকল। জওয়ানরা যে পাল্টা গুলি ছুঁড়েছিল সেগুলোও ছিল নকল গুলি।

সূত্র: আনন্দবাজার।

যমুনা অনলাইন: এটি









Leave a reply