ঈদে কালবৈখাশীর তাণ্ডবে বাস্তুহারা পরিবারগুলোর আনন্দ নেই

|

রংপুরসহ উত্তরাঞ্চলে কালবৈখাশীর তাণ্ডবে ঘর হারানো পরিবারগুলোতে ঈদ আনন্দ নেই। ৮ দিনেও মাথাগোঁজার ঠাঁই সংস্কার হয়নি অনেকের। তাই নতুন পোশাক কিংবা ভালো খাবার তো দূরের কথা ঈদের রাতেও থাকতে হয়েছে খোলা আকাশের নিচে। ঘর নির্মাণে সরকারের তরফ থেকে দেয়া পরিবারপ্রতি এক বান্ডেল টিনকে অপ্রতুল বলছেন ক্ষতিগ্রস্তরা।

ভিটেসহ ঘরটাই একমাত্র সম্বল রিক্তা বেগম ও টুটুল মিয়া দম্পতির। কালবৈশাখীতে সেটা লণ্ডভণ্ড। তাই ঈদ আনন্দ নেই পরিবারটিতে। পার্শ্ববর্তী নয়াপাড়া গ্রামের আলাল ও মুক্তা দম্পতির চিত্র একই। অনেক কষ্টে তিনটি আধপাকা ঘর করেছিলেন। সবাই ক্ষতিগ্রস্ত। ঘুরে দাড়ানোটাই এখন বড় চ্যালেঞ্জ। রিক্তা বললেন, সামান্য ভাত রান্না করেছেন আর রান্না করেছেন ডাল, এই খেয়েই পরিবার পরিজন নিয়ে ঈদ। বাচ্চাদের মুখে ভালো কোনো খাবার তুলে দেয়ার সামর্থ হয়নি। আর তার স্বামী টুটুল জানালেন, সবাই মিলে একসাথেই আছেন তারা।

পরিবারগুলো কালবৈশাখীর তাণ্ডবে ফিকে হয়ে গেছে ঈদ আনন্দ। সন্তানের নতুন কাপড় কেনা হয়নি পরিবারগুলোর।

গত ২৬ এপ্রিল তাণ্ডব চালায় শক্তিশালী ঝড়। সরকারের তরফ থেকে শুকনো খাবার, এক বান্ডেল টিন ও নগদ তিন হাজার টাকা করে সহায়তা দেয়া হয়। তবে তা প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল।

/এডব্লিউ





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply