কাওরান বাজারে সিগারেটের আড়ালে লুকিয়ে রাখা বিপুল তেল উদ্ধার

|

খুচরা বাজারে ভোজ্যতেল নেই। রাজধানীর বিভিন্ন দোকানগুলোতে হঠাৎই উধাও হয়ে গেছে সব কোম্পানির তেল। আর এই সংকটের সুযোগে চড়া দামে তেল বিক্রি করছেন বিক্রেতারা। ভোজ্যতেলের এমন সংকটের খবর পাওয়া যাচ্ছিল কয়েকদিন ধরেই। কিন্তু আজ সকালে কাওরান বাজারে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের অভিযানে বেরিয়ে এলো ব্যবসায়ীদের গোপনে তেল মজুত করার চিত্র। প্রতিটি গুদামে অবৈধভাবে মজুত রাখা হয়েছে বিপুল পরিমাণ ভোজ্যতেল। এমনকি একটি সিগারেটের গুদামে সিগারেটের পেছনে লুকিয়ে রাখা হয়েছে বিপুল পরিমাণ তেল।

রোববারের (১ মে) অভিযানে নেতৃত্ব দেয়া ভোক্তা অধিকার অধিদফতরের পরিচালক মঞ্জুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার জানালেন, কিচেন মার্কেটের তিন তলায় গোপনে তেল মজুত করে রেখেছেন পাইকারি ব্যবসায়ীরা। তেজগাঁও থানা পুলিশের সাথে যৌথ অভিযানে অবৈধভাবে মজুদকৃত বিপুল তেল উদ্ধার করে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর। পরিচালক জানান, গতকালও এই বাজারে অভিযানে এসেছিলেন তারা। তখন খুচরা দোকানে মজুত তেল উন্মুক্ত রেখে বিক্রি করার নির্দেশ দিয়েছিলেন তারা।

ভোক্তা অধিদফতরের পরিচালক জানান, থানা থেকে পাওয়া গোপন তথ্যের ভিত্তিতে এই অভিযান চালানো হয়। তাছাড়া মার্কেটের সেক্রেটারি মহোদয়ও তাদের এ বিষয়ে তথ্য দিয়েছেন বলে জানান তিনি। বলেন, আজ সকালে গিয়ে কয়েকটি সিগারেটের গুদামে এ বিপুল তেল পাওয়া যায়। সেগুলো উদ্ধার করে বিক্রির ব্যবস্থা করা হয়েছে বলেও জানালেন তিনি। তিনি বলেন, কারওয়ানবাজারে সবকয়টি পাইকারি দোকানের গুদাম খুলে মজুত করা তেল বের করে এনে সাধারণ ক্রেতাদের মধ্যে বিক্রি করা হচ্ছে।

মঞ্জুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার জানান, মিল থেকে ভোজ্যতেলের সরবরাহ স্বাভাবিক রাখা হয়েছে। কিন্তু পাইকারি পর্যায়ের কিছু ব্যবসায়ী কৃত্রিম সংকট তৈরি করে অতিরিক্ত মুনাফা করছে।

ভোক্তা অধিকার আগামীকাল এবং পরশুও কাওরান বাজারে অভিযান পরিচালনা করবে বলে জানিয়েছে সংস্থাটি। অভিযান শেষে অবৈধভাবে মজুত করায় বিসমিল্লাহ স্টোরকে ২ লাখ টাকা এবং সিদ্দিক স্টোরকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। বিসমিল্লাহ স্টোর থেকে পাঁচ লিটারের ৪শ বোতল ভোজ্যতেল উদ্ধার করা হয়।

/এডব্লিউ





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply