দুই মাস পর চাঁদপুরে জেলেদের জালে আবারও উঠছে ইলিশ

|

চাঁদপুরের দুই মাসের নিষেধাজ্ঞার পর নদ-নদীতে ইলিশের অভয়াশ্রমগুলোতে মধ্যরাত থেকে শুরু হয়েছে মাছ ধরা। নৌকা ও জাল নিয়ে ইলিশ ধরতে নামছেন জেলেরা। তাদের প্রত্যাশা মিলবে কাঙ্খিত মাছ। ইলিশের উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে ১ মার্চ থেকে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত নদ-নদীতে অভয়াশ্রমগুলোতে মাছ ধরায় নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়।

২০০৬ সাল থেকে মার্চ-এপ্রিল দুই মাস মেঘনায় চলে অভয়াশ্রম। নির্দিষ্ট সময়ে মতলব উত্তরের ষাটনল থেকে লক্ষ্মীপুরের চর আলেকজান্ডার পর্যন্ত মেঘনার ১০০ কিলোমিটার এলাকায় থাকে মাছ ধরায় নিষেধাজ্ঞা। দীর্ঘদিন অলস সময় কাটিয়ে, এখন নদীতে নামবে জেলেরা।

কর্মসূচি কতটা সফল তা বোঝা যাবে আগামী মৌসুমে মাছ প্রাপ্তির ওপর। যদিও অনেক টাকা লোকসান হয়েছে বলে দাবি, মৎস্য ব্যবসায়ী নেতাদের। এ বছর কম্বিং অপারেশনের মাধ্যমে অভিযান পরিচালনায় করায় কমর্সূচি সফল হয়েছে বলে দাবি মৎস্য বিভাগের। চাঁদপুর মৎস্য কর্মকর্তা মেহেদী হাসান বলেন, পুলিশ, কোস্ট গার্ড, মৎস্য বিভাগ এবং জেলা প্রশাসন সবাই সম্মিলিতভাবে এই অভিযানটি করা হয়েছে। এর ফলে এই বাহিনীদের কার্যক্রমে জেলেরা নদীতে নামার সাহস পায়নি।

জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ বলেন, চাঁদপুরে যেহেতু নদী বেষ্টিত জেলা তাই এখানে জেলের সংখ্যাও বেশি। নিষেধাজ্ঞা চলাকালে তাদের আমরা ত্রাণ পৌঁছে দিয়েছি। জেলেরা যখন বুঝতে পেরেছে প্রশাসন আমাদের পাশে আছে, তখন তারাও আমাদের কথা শুনছে।

মৎস্য বিভাগের তথ্য মতে, কর্মসূচি সফল করতে ৫০৭টি অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। প্রায় এক কোটি মিটার জাল আর জাটকা জব্দ করা হয়েছে প্রায় ১২ টন। অর্থদণ্ড দেয়া হয়েছে দেড় শতাধিক জেলেকে।

এসজেড/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply