দাবদাহ ও ভয়াবহ বিদ্যুৎ সঙ্কটে নাকাল পাকিস্তান

|

ছবি: সংগৃহীত

তীব্র দাবদাহ ও ভয়াবহ বিদ্যুৎসঙ্কটে নাকাল পাকিস্তান। দেশটির শহরাঞ্চলে প্রতিদিন ৬ থেকে ১০ ঘণ্টা আর গ্রামাঞ্চলে ৮ থেকে ১৬ ঘণ্টা পর্যন্ত বিদ্যুৎ থাকছে না। প্রভাবশালী সংবাদ পত্র ডনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিদ্যুৎ থাকছে না। এছাড়া, দেশটিতে এই মুহূর্তে বিদ্যুৎ ঘাটতিও নেহায়েত কম না। চাহিদার অনুপাতে প্রতিদিন ৬-৭ হাজার ইউনিটের ঘাটতি থাকায় পাকিস্তানজুড়ে এখন লোডশেডিং। খবর ডনের।

শুক্রবার (২৯ এপ্রিল) প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে ডন জানিয়েছে, জ্বালানি সঙ্কটের জন্য তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলিতে বিদ্যুৎ উৎপাদন কম হচ্ছে। আর গ্রীষ্মকালে বিদ্যুতের চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় পাল্লা দিয়ে বেড়েছে লোডশেডিংও ।

লাহোরের এক বাসিন্দা ডনকে জানিয়েছেন, বুধবার (২৭ এপ্রিল) আট ঘণ্টা বা তার বেশি সময় ধরে লোডশেডিং ছিল। ছয় ঘণ্টা দিনে। দুই ঘণ্টা রাতে। এরকম চলছে দুই সপ্তাহের বেশি সময় ধরে। জানা গেছে, জ্বালানি সঙ্কট ও প্রযুক্তিগত দুর্বলতা এ লোডশেডিংয়ের কারণ। পাকিস্তানে এখন দৈনিক বিদ্যুতের চাহিদা ২৫ হাজার মেগাওয়াট, আর সেখানে উৎপাদন হচ্ছে ১৮ হাজার মেগাওয়াটের মতো।

পাকিস্তানের ইলেকট্রিসিটি ডিসট্রিবিউশন অথরিটি জানিয়েছে, জ্বালানি সঙ্কট সাময়িক, খুব তাড়াতাড়িি উদ্ভুত পরিস্থিতি সামাল দেয়া হবে।

এদিকে বিদ্যুৎ ঘাটতি নিয়ে সম্প্রতি উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক করেছেন পাকিস্তানের নতুন প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরীফ। আগামী ১ মে এর মধ্যে বিদ্যুৎ ঘাটতি ও এ সংক্রান্ত সকল সমস্যা সমাধানের নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। বৈঠকে তিনি বলেন, পাকিস্তানের মানুষকে বিদ্যুৎ দিতে হবে, বিদ্যুৎ সঙ্কট সংক্রান্ত যাবতীয় সমস্যা দ্রুততম সময়ের মধ্যে মিটিয়ে ফেলতে হবে। বিদ্যুৎ সমস্যা সমাধানে বৈঠকে উপস্থিত কর্মকর্তাদের কাছে দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনাও চেয়েছেন তিনি।

/এসএইচ 





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply