পাকিস্তান বিশ্ববিদ্যালয়ে আত্মঘাতী বোমা হামলাকারী ছিলেন একজন নারী

|

হামলার শিকার মিনিবাস।

পাকিস্তানে নতুন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শেহবাজ শরীফ ক্ষমতা গ্রহণের মাত্র দুই সপ্তাহের মাথায় করাচি বিশ্ববিদ্যালয়ে বোমা হামলার ঘটনায় হতবাক গোটা বিশ্ব। মঙ্গলবার (২৭ এপ্রিল) একটি মিনিবাসকে লক্ষ্য করে এ হামলা চালানো হয়, যাতে পাকিস্তানি বাসচালকসহ মারা যায় তিনজন চীনা শিক্ষক। সিসিটিভি ফুটেজ বিশ্লেষণ করে জানা গেছে, এ আত্মঘাতী হামলাকারী ছিলেন একজন নারী। খবর ইউএস নিউজের।

মঙ্গলবার স্থানীয় সময় দুপুর ২টার দিকে করাচি বিশ্ববিদ্যালয়ের চীন ভিত্তিক শিক্ষা বিষয়ক প্রোগ্রাম কনফুসিয়াস ইনস্টিটিউটের সামনে এ আত্মঘাতী বোমা হামলার ঘটনা ঘটে। ওই সময় লাঞ্চ ব্রেক শেষে একটি মিনি বাসে করে বিশ্ববিদ্যালয়ে ফিরছিলেন ওই চীনা শিক্ষকরা। এ সময়ই হামলা চালানো হয়। হামলার দিনই দায় স্বীকার করে দেশটির নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন বালুচিস্তান লিবারেশন আর্মি (বিএলএ)।

সিসিটিভি ফুটেজে দেখা গেছে, বোরখা পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের গেটের মুখে দাঁড়িয়ে আছেন একজন নারী। চীনা নাগরিকদের বহনকারী সাদা রঙের একটি মিনিবাস বিশ্ববিদ্যালয়ে ঢুকতে যাওয়ার মুহূর্তেই তিনি বাসটির কাছাকাছি ছিলেন। এরপরই বিস্ফোরণ ঘটে।

এরই মধ্যে এই হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। অপরাধীদের গ্রেফতার এবং শাস্তির ওপরও জোর দিয়েছে চীন সরকার। এর আগে গত বছরের জুলাই মাসে পাকিস্তানের উত্তরাঞ্চলে একটি যাত্রীবাহী বাসে আত্মঘাতী বোমা হামলা চালানো হয়। এ ঘটনায় জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রের ৯ জন চীনা কর্মীসহ মারা যান ১৩ জন।

এসজেড/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply