প্রতিবাদ করলেই আটক নিয়ে প্রশ্ন তুললেন ১৯ বিশিষ্ট নাগরিক

|

রাজধানীর কলাবাগানের তেঁতুলতলা মাঠে থানা ভবন নির্মাণের প্রতিবাদ করায় স্থানীয় বাসিন্দা সৈয়দা রত্না এবং তার ছেলে মোহাম্মদ ঈসা আবদুল্লাহ প্রিয়াংশুকে প্রায় ১২ ঘণ্টা কলাবাগান থানায় আটকে রাখার প্রতিবাদ জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন দেশের ১৯ বিশিষ্ট নাগরিক।

বিবৃতি দেয়া নাগরিকরা হলেন, আব্দুল গাফ্ফার চৌধুরী, সৈয়দ হাসান ইমাম, অনুপম সেন, রামেন্দু মজুমদার, ফেরদৌসী মজুমদার, সারোওয়ার আলী, আবেদ খান, সেলিনা হোসেন, আবদুস সেলিম, লায়লা হাসান, মফিদুল হক, মামুনুর রশীদ, শফি আহমেদ, শাহরিয়ার কবীর, মুনতাসীর মামুন, নাসির উদ্দীন ইউসুফ, সারা যাকের, শিমূল ইউসুফ ও হারুণ হাবীব।

বিবৃতিতে কলাবাগান তেঁতুলতলা মাঠ শিশু-কিশোরদের খেলার জন্য সরকারিভাবে বরাদ্দ দেয়ার দাবি জানিয়েছেন এসব বিশিষ্ট নাগরিক। বিবৃতিতে তারা বলেন, ‌যেকোনো প্রকার প্রতিবাদ করলে সঙ্গে সঙ্গে প্রতিবাদকারীকে এ দেশে গ্রেফতার হতে হয়। এভাবে মত প্রকাশে বাধা দেশকে স্থবির করে দিচ্ছে।

বিবৃতিতে বলা হয়, আমরা দ্ব্যর্থহীন বলতে চাই যে শত পথ শত মতের দেশ বাংলাদেশ, বৈচিত্র্যের মধ্যে ঐক্য নির্মাণের সংস্কৃতিতে বিশ্বাস করে। পুলিশ সৈয়দা রত্না ও প্রিয়াংশুকে খেলার মাঠের দাবি আদায়ের আন্দোলন থেকে সরে আসবে— এ রকম মুচলেকায় ন্যক্কারজনকভাবে স্বাক্ষর নিয়ে তাদের মুক্তি দিয়েছে বলে আমরা গণমাধ্যমে জানতে পেরেছি। আমরা এই হীন মুচলেকার তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং তা প্রত্যাহারের দাবি জানাচ্ছি।

এতে আরও বলা হয়, আমরা কলাবাগান তেঁতুলতলার মাঠটিকে খেলার মাঠ হিসেবেই দেখতে চাই। কলাবাগান থানা ভবনের জন্য অন্য কোনো জায়গা খুঁজে ভবন নির্মাণের পরামর্শ দিচ্ছি। ঢাকা দক্ষিণের মেয়র পুলিশ প্রশাসনকে কলাবাগান থানা ভবনের জন্য অন্য কোথাও স্থান নির্ধারণের যে পরামর্শ দিয়েছেন তা আমরা সমর্থন করি।

মা ও ছেলের প্রতিবাদ এবং সাহসী সামাজিক আন্দোলন সৃষ্টির জন্য বিবৃতিতে সাধুবাদ ও অভিবাদন জানানো হয়।

/এমএন





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply