টানা দুই রাত একদিন স্টেশনে অপেক্ষার পর টিকিট পেয়েছেন তিনি!

|

মুসলমানদের অন্যতম আবেগের উৎসব ঈদ। নাড়ির টানে পরিবারের সাথে ঈদ উদযাপন করার ইচ্ছে যেন সকল কষ্টকে ফিকে করে দেয়। ২৯ এপ্রিলের ট্রেনের আগাম টিকিট পেতে দিন রাতের কথা ভুলে লাইনে দাঁড়িয়েছেন বহু মানুষ। কেউ বা হেসেছেন প্রাপ্তির হাসি আবার কেউ বা কাঙ্ক্ষিত টিকিট না পেয়ে ফিরে গেছেন শুকনো মুখে। কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে দাঁড়িয়ে এমনই একজন টিকিট প্রত্যাশী জানালেন, আগাম টিকিটের জন্য নাকি দাঁড়িয়েছিলেন টানা ২ রাত ১ দিন। তারপর হাতে পেয়েছেন বহুল প্রত্যাশিত ঈদ যাত্রার টিকিট। পরিবারের সাথে ঈদ করতে পারবেন এই আনন্দ যেন ভাসছিল তার দুই চোখে।

আরেক টিকিট প্রত্যাশী জানালেন, সেহরি শেষ করেই দাঁড়িয়েছেন লাইনে। দাঁড়িয়ে আছেন ১৫০ নাম্বার সিরিয়ালে। টিকিট পাবেন কি পাবেন না, নেই কোনো নিশ্চয়তা। তবুও প্রিয়জনের সাথে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করে নেবার অদম্য ইচ্ছে শক্তিতে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করছেন।

সোমবার (২৫ এপ্রিল) সকাল ৮টা থেকে কাউন্টারে টিকিট বিক্রি শুরু হয়েছে। নিয়ম অনুযায়ী টিকিটের ৫০ ভাগ দেয়া হয় কাউন্টারে, আর বাকি ৫০ ভাগ পাওয়া যাবে অনলাইনে। রাত থেকেই কাউন্টারে আসা অনেকেই লাইনে দাড়িয়ে অনলাইনে টিকিট কাটার চেষ্টা করেন। কাউন্টারে আসা অনেকেই লাইনে দাঁড়িয়েই অনলাইনে টিকিট কাটার চেষ্টা করেন।

অনলাইনে টিকিট কাটতে সার্ভার জটিলতায় অনেকেই এসেছেন কাউন্টার থেকে টিকিট সংগ্রহ করতে। ফলে কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে যাত্রীদের উপচে পরা ভিড়। কমলাপুর ছাড়াও তেজগাঁও, বিমানবন্দর, বনানী আর ফুলবাড়িয়া স্টেশন কাউন্টার থেকে বিক্রি হচ্ছে আরও ২০টি ট্রেনের টিকেট।

এই ঈদে প্রতিদিন ৫৩ হাজার ৯শ ৪৫টি টিকিট বিক্রি করবে রেলওয়ে। প্রথমবারের মতো টিকিট কাটতে এনআইডি নম্বর সংযুক্ত করায় সময় বেশি লাগছে এমন অভিযোগ রয়েছে যাত্রীদের। অভিযোগ স্বীকার করছেন সংশ্লিষ্টরাও।

/এডব্লিউ





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply