শিশুর লাশ লুকিয়ে রেখে অপহরণ নাটক সাজায় দাদি-ফুপু

|

দুরন্ত আর ছটফটে ছিল শিশু তামিম। পরিচিত, অপরিচিত সবার সাথে কথার খই ফুটাতো সে। সে কারণে সবার আদরের ছিল ৩ বছর বয়সী তামিম। গত শুক্রবার সকালে রাজশাহীর গোদাগাড়ীর মাটিকাটার নিজ বাড়ি থেকে শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

সোমবার রাজশাহীর পুলিশ সুপার মো শহীদুল্লাহ এক সংবাদ সম্মেলনে জানান, মরদেহ এক দিন বাড়ির পাশে লুকিয়ে রেখে অপহরণ নাটক সাজিয়েছিল তামিমের দুই ফুপু ও দাদি। তামিমের বাবা, মা ও দাদা ঘটনাটি জানতেন না।

তিনি জানান, গত বৃহস্পতিবার সকালে তামিম তার চৌদ্দ বছর বয়সী ফুপু সোনিয়ার পাশে বসেছিলো। ফুপু পেঁয়াজ কাটাবস্থায় কাঠের হাতলবিহীন হাসুয়া উপরের দিকে তুলে। যখন নিচে নামায় হাসুয়ার নিচের লোহার অংশ তামিমের মাথার তালুতে ঢুকে যায়। কয়েক মিনিটে
মৃত্যু হয় তার। পরে সোনিয়া, আরেক ফুপু রাবেয়া ও দাদি নারগিস মিলে লাশ বাড়ির পাশে মাচার নিচে লুকিয়ে ফেলে। প্রচার করা হয় যে তামিমকে অপহরণ করা হয়েছে।

এ ঘটনায় এলাকায় মাইকিংও করা হয়। ঘটনাটি ইচ্ছাকৃত না অসাবধানতাবসত তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ। এ ঘটনায় দায়েরকৃত হত্যা মামলায় দাদি ও দুই ফুপুকে গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে প্রেরণ করেছে পুলিশ। আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিতে পারেন তারা।

উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার শিশু তামিম নিখোঁজ বলে এলাকায় মাইকিং করা হয়। শুক্রবার সকালে রাজশাহীর গোদাগাড়ীর মাটিকাটার নিজ বাড়ি থেকে লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

যমুনা অনলাইন: এমআর/টিএফ









Leave a reply