যৌন নির্যাতনের পর বাংলাদেশি তরুণীর পা ভাঙলো সৌদি গৃহকর্তা

|

‘ওরা আমাকে নিয়মিত নির্যাতন করতো। প্রথমে লজ্জায় কাউকে বলতাম না। কিন্তু ওদের নির্যাতন আর সইতে না পেরে শেষ পর্যন্ত মুখ খুলতে বাধ্য হয়েছি। আমি আর বাঁচতে চাই না। আর পারছি না।’

১৯ বছর বয়সী এক বাংলাদেশি তরুণীর আর্তনাদ এটি। এক ভিডিও বার্তায় এনজিও কর্মীদেরকে এভাবেই নিজের দুর্দশার কথা জানাচ্ছিলেন তিনি।

ভাগ্য বদলানোর আশায় গৃহকর্মী হিসেবে ফেব্রুয়ারি মাসে সৌদি আরবের রিয়াদে পৌঁছান তিনি। যাওয়ার পর থেকেই গৃহকর্তা ও অন্যান্যদের যৌনি নির্যাতন ও মারধরের শিকার হতে হয় তাকে। দেশে পরিবারকে এ বিষয়ে জানালে তার বাবা বাংলাদেশ সরকারের সংশ্লিষ্ট শাখায় যোগাযোগ করে অভিযোগ জানান। এক পর্যায়ে সৌদি আরবে বাংলাদেশ দূতাবাস থেকে ওই তরুণীকে বলা হয়, তিনি যেন তার কর্মস্থল থেকে পালিয়ে আসেন।

কিন্তু পালাতে গিয়ে ধরা পড়েন মালিকের হাতে। আবারও মারধর করে থাকে সিঁড়ির ওপর থেকে ধাক্কা দিয়ে নিচে ফেলে দেয়া হয়। এতে এক পা ভেঙে গেলে তাকে হাসপাতালে রেখে চম্পট দেন গৃহকর্তা।

মিডলইস্ট আই নামক মধ্যপ্রাচ্য ভিত্তিক সংবাদমাধ্যম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ওই তরুণীর ছবি প্রকাশ করেছে। তাতে দেখা যাচ্ছে তার ভাঙা পাটি ব্যান্ডেজ করা।









Leave a reply