রকেট ও ড্রোন নিয়ন্ত্রণে উন্নত প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করছিলেন ফাদি

|

মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুরে আঁততায়ীর গুলিতে নিহত ফিলিস্তিনি বিজ্ঞানী ফাদি আল বাতশ হামাসের সামরিক শাখা কাসসাম ব্রিগেডের কমান্ডার ছিলেন বলে জানিয়েছে সংগঠনটি। তিনি রকেট ও ড্রোন নিয়ন্ত্রণে উন্নত প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করছিলেন।

টাইমস অব ইসরায়েল জানিয়েছে, ফাদি ইতোমধ্যে তার গবেষণাপত্র প্রকাশ করেছিলেন। এসব কারণে ইসরায়েলি গুপ্তহত্যা বাহিনী মোসাদের টার্গেটে পরিণত হন এই বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক।

গত শনিবার সকালে কুয়ালালামপুরে নিজের বাসা থেকে ফজরের নামাজে মসজিদে যাওয়ার সময় দুই অজ্ঞাত ব্যক্তি ফাদি আল বাতশকে গুলি করে পালিয়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই তিনি মারা যান।

মালয়েশিয়ার উপপ্রধানমন্ত্রী আহমেদ জাহিদ হামিদি বলেছেন, সন্দেহভাজনরা ইউরোপিয় কোনো দেশের নাগরিক এবং তাদের সাথে বিদেশি কোনো সংস্থার সংযোগ থাকতে পারে।

নিহতের পরিবার এবং তার সংগঠন হামাস বলছে, ফাদিকে মোসাদই হত্যা করেছে। ফিলিস্তিনি কোনো ব্যক্তি জ্ঞান-বিজ্ঞানে উন্নত শিক্ষা গ্রহণ করুক ইসরায়েলি তা চায় না। এজন্য বিগত কয়েক বছর ধরে বেশ কয়েকজন ফিলিস্তিনি বিজ্ঞানী ও শিক্ষাবিদকে বিভিন্ন দেশে হত্যা করেছে ইহুদীবাদী দেশটির গুপ্তঘাতকরা।

হামাস প্রধান ইসমাইল হানিয়া বলেছেন, ফাদির রক্ত বৃথা যেতে দেয়া হবে না। এর প্রতিশোধ নেয়া হবে।

মালয়েশিয়ার পুলিশ প্রধান দাতুক সেরি মানসুর লাজিম জানিয়েছেন, হত্যাকারী দুই ব্যক্তি স্থানীয় একটি আবাসিক ভবনের সামনে ফাদির জন্য ২০ মিনিট ধরে অপেক্ষা করছিলো। বাসা থেকে মসজিদে যাওয়ার জন্য বের হওয়ার পর তার উপর ১০টি গুলি করা হয়। এতে তিনি ঘটনাস্থলেই মারা যান। মালয়েশিয়া পুলিশ এই হামলাকে সন্ত্রাসী হামলা হিসেবে বিবেচনা করছে।









Leave a reply