রাজার আদেশে ‘সোয়াজিল্যান্ড’ হলো ‘এসওয়াটিনি’

|

মানুষের নাম পাল্টে যায়, জায়গার নামও বদলায়, এমনকি শহর-জেলা-বিভাগের নাম সংশোধনের ঘটনাও ঘটে। কিন্তু দেশের নাম পরিবর্তনের ঘটনা বিরল। সেই বিরল ঘটনাই ঘটলো এবার।

আফ্রিকার দেশ সোয়াজিল্যান্ডের (Swaziland) নাম পাল্টে ফেললেন রাজা তৃতীয় এমসোয়াতি। নতুন নাম দিয়েছেন এসওয়াটিনি (eSwatini)। বৃহস্পতিবার দেশটির স্বাধীনতার ৫০ বর্ষপূর্তীর অনুষ্ঠানে তিনি এই ঘোষণা দেন। রাজার ৫০তম জন্মবার্ষিকীও ছিলো এদিন।

সোয়াজিল্যান্ডের মতো এসওয়াটিনির অর্থও সোয়াজিদের ভুখণ্ড। বৃহস্পতিবার ঘোষণা দিলেও গত কয়েক বছর ধরেই রাজা দেশের নাম হিসেবে এই শব্দটি ব্যবহার করছিলেন।

বিবিসি বলছে, এমন হুট নাম পরিবর্তন করায় দেশের অনেকেই ক্ষুব্ধ। তাদের মতে, এসব ফালতু কাজে অর্থ ও সময় নষ্ট না করে, রাজার উচিত দেশের অর্থনীতি পুনোরুদ্ধারে মনোযোগ দেয়া। নাম পরিবর্তনের সাথে নতুন করে লিখতে হবে দেশটির সংবিধান। সেনাবাহিনী, পুলিশ বাহিনীর নামও বদলাতে হবে। এমনকি সোয়াজিল্যান্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের নামটিও আর থাকছে না।

১৯৮৬ সালে মাত্র ১৮ বছর বয়সে দেশের শাসনভার গ্রহণ করেন রাজা তৃতীয় এমসোয়াতি। অতি দরিদ্র দেশ হওয়া সত্ত্বেও অতিমাত্রায় বিলাসবহুল জীবন যাপনের অভিযোগ রয়েছে রাজার। বিশ্বের সবচেয়ে বেশি এইচআইভি আক্রান্তের হার ১৩ লাখ মানুষের এই দেশটিতে। বয়স্কদের প্রায় ২৭ ভাগই প্রাণঘাতি এই ভাইরাসে আক্রান্ত।

ব্রিটিশদের হাত থেকে স্বাধীন হবার পরে আফ্রিকার অনেক দেশই ব্রিটিশদের চাপিয়ে দেয়া নাম ত্যাগ করে পূর্ববর্তী নামে ফিরে যায়। রোডেশিয়া হয়ে যায় জিম্বাবুয়ে, নিয়াসাল্যান্ড হয় মালাউয়ি, আর বেচুয়ানাল্যান্ড নেয় বতসোয়ানা নাম।









Leave a reply