বিড়ালের প্রতিকৃতি বানিয়ে আলোচনায় জাপানের শিল্পী

|

ছবি: সংগৃহীত

বিড়ালের প্রতিকৃতি বানিয়ে আলোচনায় জাপানের এক শিল্পী। অবয়বগুলো এতোটাই নিখুঁত যেনো সত্যিকারের বিড়াল। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও বেশ চর্চিত তার উলের বুনন। তাই, অনেকেই বানিয়ে নিচ্ছেন পোষ্যের প্রতিচ্ছবি। প্রথম দেখায় যে কেউ সত্যিকারের বিড়াল ভেবে ভুল করতে পারেন। উলের তৈরি বিড়ালটি বানিয়েছেন জাপানের এক শিল্পী। তার নিখুঁত বুনন ও নির্মাণ শৈলিতে আছে ভিন্নতা।

বিড়ালপ্রেমী এ শিল্পী বিড়ালের প্রতিটা ক্ষুদ্র অংশই অত্যন্ত দক্ষতার সাথে নিখুঁতভাবে বানান। চোখ বানাতে তিনি ব্যবহার করেন কাচের টুকরো আর গোঁফগুলো বানানো হয় সত্যিকারের বিড়ালের গোঁফ দিয়ে। কানসহ বাকি অবয়ব তৈরি করতে ব্যবহার করা হয় উল। তার কাছে কমপক্ষে দু’শো ধরনের বিভিন্ন রঙের উল রয়েছে।

জাপানের থ্রিডি আর্টিস্ট সাচি জানান, বিড়ালগুলোকে নিখুঁত করতে রঙ ছাড়াও অনেক কিছুর দিকেই আমাকে খেয়াল রাখতে হয়। এই ধরুন, আমার কাছে শুধু সাদা রঙেরই বিভিন্ন ধরনের ডজনের বেশি উল রয়েছে। কাজটি করার জন্য খুব সতর্কভাবেই উপাদানগুলো বাছাই করতে হয়।

প্রথমে, বিড়ালের বেশকয়েকটি ছবি নিখুঁতভাবে দেখে তারপর প্রয়োজনীয় উপকরণের দিকে নজর দেন জাপানি এই শিল্পী। শুধুমাত্র বিড়ালের মূল নকশা বানাতেই লেগে যায় কমপক্ষে ১০ দিন। তবে শিল্পীর মতে, সবচেয়ে কঠিন কাজ বিড়ালের চোখ বানানো।

এ ব্যপারে তিনি বলেন, আমি মনে করি একটি বিড়ালকে তার চোখের মাধ্যমেই জীবন্ত বানানো যায়। এ কারণেই বিড়ালগুলোর চোখ বানাতে আমি খুব বেশি যত্নশীল।

শখের বসে বিড়ালের প্রতিকৃতি বানানো শুরু করলেও এখন এটিই তার আয়ের উৎস। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছবি শেয়ার করার পর থেকেই প্রতিদিন পাচ্ছেন অর্ডার। বর্তমানে ইন্সটাগ্রাম ও ইউটিউবে তার প্রায় ৬ লাখ অনুসারী। শিল্পী বলছেন, তার এ কাজের ছবিগুলো মানুষকে বিড়াল দত্তক নিতেও আগ্রহী করছে।

/এনএএস





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply