পরীক্ষার্থী সেজে ডিভাইস নিয়ে পরীক্ষাকেন্দ্রে যেতেন তারা, ডিবির হাতে ধরা

|

প্রতিরক্ষা মহাহিসাব নিরীক্ষকের কার্যালয়ে অডিটর নিয়োগ পরীক্ষায় জালিয়াতির সাথে জড়িত চক্রের সদস্য ও পরীক্ষার্থীসহ ১০ জনকে গ্রেফতার করেছে ডিবি। গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে শিক্ষার্থী, জনপ্রতিনিধিও রয়েছেন। তাদের কাছ থেকে ইলেক্ট্রনিক্স ডিভাইস, নগদ টাকা, ফাঁস হওয়া প্রশ্নের সেটসহ প্রশ্নফাঁসে ব্যবহৃত বেশকিছু আলামত উদ্ধার করে গোয়েন্দা পুলিশ।

শনিবার (২০ জানুয়ারি) সকালে সংবাদ সম্মেলনে গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) অতিরিক্ত কমিশনার এ কে এম হাফিজ আক্তার জানান, গ্রেফতারকৃতরা দীর্ঘদিন ধরে সরকারি নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসে জড়িত। পরীক্ষার্থী সেজে কেন্দ্রে ডিজিটাল ডিভাইস নিয়ে প্রবেশ করেন চক্রের সদস্যরা। পরীক্ষার হল থেকে ডিভাইসের মাধ্যমে প্রশ্ন বাইরে পাঠানো হয়। বাইরে থাকা চক্রের সদস্যরা প্রশ্ন দ্রুত সমাধান করে আবার পরীক্ষাকেন্দ্রে পাঠান। এভাবেই প্রশ্ন ফাঁস করে এমসিকিউ পরীক্ষায় পাস করানো হয় চাকরি প্রার্থীদের।

শুক্রবার অডিটর নিয়োগ পরীক্ষার পরপরই রাজধানীর বিজি প্রেস উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে অভিযান চালায় গোয়েন্দা পুলিশ। আটক করা হয় পরীক্ষার্থী ও বগুড়ার ধুপচাঁচিয়া উপজেলার ভাইস-চেয়ারম্যান নাসরীন রুপাকে। এসময় তার কাছ থেকে উদ্ধার করা হয় অতিক্ষুদ্র ডিভাইস, যেটি কানে দিয়ে বাইরে থাকা চক্রের সদস্যদের সঙ্গে যোগাযোগ করতেন রুপা।

রাতে অভিযান চালানো হয় সেনপাড়া পর্বতার একটি বাসায়। সেখান থেকেও আটক করা হয় চারজনকে। এসময় তাদের কাছ থেকে ডিভাইস, মাস্টার কার্ড, সিম কার্ড গোল্ডার, ব্যাংক চেক, স্ট্যাম্পসহ নানা জিনিসপত্র।

চক্রটি বেশ কয়েকটি ধাপে এই অপকর্ম করে বলে জানান কর্মকর্তারা। এজন্য শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে নেয়া হয়েছিল ১৬ লাখ টাকা পর্যন্ত।

শুক্রবার অনুষ্ঠিত এই পরীক্ষা বাতিল ঘোষণা হবে কিনা সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে প্রতিরক্ষা মহাহিসাব নিরীক্ষকের কার্যালয়। তবে, জালিয়াতি সম্পর্কে নিজেদের অভিযানের কথা সংশ্লিষ্ট দপ্তরকে জানানো হবে বলে জানান ডিবি কর্মকর্তারা।

/এডব্লিউ





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply