বলিউডে আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ বেড়েই চলছে

|

কোভিড-১৯ সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় বছরের শুরুতেই প্রায় দেড় হাজার কোটি টাকা ক্ষতির ধাক্কা সামলাতে হচ্ছে বলিউড ইন্ডাস্ট্রিকে। ভারতের আনন্দবাজার পত্রিকার এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে এ তথ্য। করোনাভাইরাস হানা দেয়ার আগে প্রতি বছর চার হাজার কোটি টাকারও বেশি ব্যবসা হতো বলিউড সিনেমার বক্স অফিসে। সেই সোনালি দিন আবার কবে ফিরে আসবে, এ নিয়ে দিন গুণছে বলিউড পাড়া।

গত বছরের দীপাবলি থেকে পরপর ছবি মুক্তি দেয়ার পরিকল্পনা করেছিলেন নির্মাতারা। কিন্তু দু’মাসের মধ্যেই সেই পরিকল্পনা ধাক্কা খেয়েছে। গত নভেম্বরে ‘সূর্যবংশী’, ডিসেম্বরে দক্ষিণী ছবি ‘পুষ্পা’ যেটুকু হাসি ফুটিয়েছিল ফিল্ম ব্যবসায়ীদের মুখে, করোনার তৃতীয় ঢেউ তা মিলিয়ে দিয়েছে। আবারও বাতিল হলো বিগ বাজেটের সিনেমার মুক্তি, পিছিয়ে গেছে একাধিক সিনেমার শুটিং।

গেল বছরের ৩১ ডিসেম্বর ‘জার্সি’ এবং জানুয়ারির শুরুতে ‘ট্রিপল আর’ সিনেমার মুক্তি স্থগিত হওয়ার মধ্যে দিয়ে ২০২২ সালের ক্ষতির খতিয়ান শুরু হয়েছে। দু’টি ছবির প্রচারে বড় অঙ্কের টাকা ইতোমধ্যেই খরচ হয়ে গেছে।

নির্মাতা এসএস রাজামৌলীর ‘ট্রিপল আর’ ছবির ব্যবসার উপরে বড় ভরসা ছিল ইন্ডাস্ট্রির। যেমনটা ভরসা ছিল প্রভাষের ‘রাধে শ্যাম’ এবং অক্ষয় কুমারের ‘পৃথ্বীরাজ’ এর উপরেও। এই দু’টি বড় ছবি জানুয়ারিতে মুক্তি পাওয়ার কথা ছিল, যা বাতিল হয়েছে। বছরের শুরুতেই প্রায় দেড় হাজার কোটি টাকা ক্ষতির ধাক্কা সামলাতে হল বলিউড ইন্ডাস্ট্রিকে।

এছাড়া পিছিয়ে গেছে সালমান খান-ক্যাটরিনা কাইফের ‘টাইগার থ্রি’, শাহরুখ খানের ‘পাঠান’, রণবীর সিংহ-আলিয়া ভাটের ‘রকি অওর রানি কী প্রেম কহানি’র শুটিং। ছবির শুটিং বাতিল হলেও ক্ষতির ভার বইতে হয় নির্মাতাদের।

ট্রেড অ্যানালিস্টদের মতে, ছবির রিলিজ় এবং শুটিং পিছিয়ে যাওয়ায় জানুয়ারিতেই ১৫০০ কোটি টাকা ক্ষতির মুখোমুখি হয়েছে ইন্ডাস্ট্রি।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply