রিয়াজ ভাইয়ের কান্না হাস্যকর লেগেছে: জায়েদ খান

|

শিল্পী সমিতির নির্বাচন ইস্যুতে জনপ্রিয় চিত্রনায়ক রিয়াজের কান্না হাস্যকর বলে মন্তব্য করেছেন জায়েদ খান।

মিথ্যা ছড়িয়ে শিল্পী সমিতির নির্বাচনকে বিতর্কিত করার চেষ্টা করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন চিত্রনায়ক জায়েদ খান। একটি গোষ্ঠী তার কমিটির দুর্নাম করতে উঠেপড়ে লেগেছে বলে তার অভিযোগ। এসময় শিল্পী সমিতি নির্বাচনে বিরোধী প্যানেলের আলোচিত কয়েকজন সদস্যের দিকে ইঙ্গিত করে মন্তব্যও করেছেন জায়েদ।

মঙ্গলবার (১৮ জানুয়ারি) গভীর রাতে নিজ বাসভবনের সামনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব অভিযোগ করেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে জায়েদ বলেন, শিমুর হত্যাকারীকে যদি র‍্যাব আজকে না ধরতো তাহলে আমার বিরুদ্ধে আন্দোলন হতো এফডিসিতে। আমার কি হইতো খালি চিন্তা করেন একবার! আমি বিশেষভাবে ধন্যবাদ জানাতে চাই র‍্যাব ও পুলিশকে।

শিল্পী সমিতির নির্বাচন ও শিমু হত্যাকাণ্ড ইস্যুতে জায়েদ খান বলেন, আমি নামধরেই বলতে চাই যে রিয়াজ ভাই কাঞ্চন ভাই আপনারা সম্মানিত মানুষ। এই নোংরামীগুলো কি আপনারা দেখছেন না? এগুলো কেন বন্ধ করছেন না আপনারা? আমি কাঞ্চন ভাইকে আবারও বলবো, আপনি একুশে পদক পাওয়া সম্মানিত লোক, এই নোংরামি বন্ধ করেন। এই রিয়াজ ভাই আজকে অভিনয় করে মেকি কান্না কাঁদতেছে। অথচ এই শিমু-খোকনদের মত শিল্পীদের সহযোগী তালিকায় নেয়ার সময় তো কাঞ্চন ভাই, রিয়াজ ভাই, ফারুক ভাই, আলমগীর ভাই সবাই ছিলেন। এটা সবাই জানে। তখন তো তারা কেউ কোনো আপত্তি করেননি।

জায়েদ খান জানান, শিমুর সাথে গত দুইবছরে আমার দেখা বা কথা হয়নি। আর এখন যা দেখছেন তা হলো সামনে ৩-৪ জনকে রেখে পেছনে কলকাঠি নাড়ছেন অন্য কেউ। আমি দুই টার্ম নির্বাচিত হয়েছি, আমার সাফল্য অনেকেরই পছন্দ হচ্ছে না।

এসময় জনপ্রিয় চিত্রনায়ক রিয়াজ সম্পর্কে জায়েদ বলেন, এখন যা ইস্যু হচ্ছে বা কিছু হচ্ছে তা নির্বাচনকে কেন্দ্র করেই হচ্ছে। রিয়াজ ভাই মেকি কান্না কাঁদতেছেন, অথচ তিনিই ২০১৭ সালে সহযোগী যাচাইবাছাই করেছেন আমাদের সাথেই। তখন তিনি ভেটো দেননি। রিয়াজ ভাই আপনি সম্মানিত মানুষ, সম্মান নিয়েই আমাদের ওপর থাকেন। আপনাদের থেকে আমরা ভাল জিনিস শিখছি। আপনারা সিনিয়র, আপনাদের দেখানো পথেই আমরা হাঁটবো। আমাদের খারাপ কিছু দেখলে আপনারা শাসন করবেন, কিন্তু দয়া করে নোংরামী করবেন না।

কলকাঠি কারা নাড়ছে-প্রশ্নের জবাবে জায়েদ বলেন, যে প্যানেল আমার বিরুদ্ধে তারাই, ইন্ডাস্ট্রির একটা অংশ আমার বিরুদ্ধে এক হয়েছেন। যারা শিল্পী সমিতির ভাল চান না, আমার ভালো কাজগুলোকে সহ্য করতে পারেন না তারাই এগুলো করছেন।

আরও পড়ুন: স্বামীই চিত্রনায়িকা শিমুর হত্যাকারী, দাবী ভাইয়ের

আপনি কি মনে করেন নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিতর্ক তৈরি করা হচ্ছে? এমন প্রশ্নের জবাবে জায়েদ বলেন, অবশ্যই। বিশেষ করে সাদিয়া নামের মেয়েটার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হওয়া উচিত। তাকে আমি কাগজে-কলমে বা শিল্পী সমিতিতে কখনই কোথাওই পাইনি। অথচ সে বিভিন্ন জায়গায় অভিযোগ করে যে আমি নাকি তাকে অনৈতিক প্রস্তাব দিয়েছি। অথচ কোনো প্রমাণও সে দেখাতে পারে না। আজকে র‍্যাব যদি শিমুর হত্যাকারীকে গ্রেফতার না করতো তাহলে কাল এফডিসিতে বিশাল আন্দোলন হতো আমার বিরুদ্ধে।

সাংবাদিকদের উদ্দেশে জায়েদ খান বলেন, দেখুন আমি সবচেয়ে বেশি কাজ করেছি, সময় দিয়েছি। এজন্য টার্গেট আমি। যেকোনো মূল্যে তারা আমার দুর্নাম করবে। এজন্য, আমি মিডিয়ার সাপোর্ট চাই। আমি যদি অন্যায় বা খারাপ কিছু করি আপনার সেগুলো তুলে ধরবেন। আমার যেন দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হয়। কিন্তু অন্যায় করে বা ব্যাড পলিটিকস করে যেন নির্বাচনকে বিতর্কিত করা না হয়।

জায়েদ বলেন, শিল্পীরা ভোট দেবেন, যদি তারা ভোট না দেন আমি মাথা নিচু করে চলে যাবো। কিন্তু ভোটের আগেই যে নোংরামী শুরু হলো তা দুঃখজনক। আমি অবাক হয়ে গেছি যে, যে প্যানেলে কাঞ্চন ভাই, রিয়াজ ভাই, অমিত ভাইয়ের মতো সিনিয়র মানুষগুলো আছে তারা এই জিনিসগুলো দেখবে না!

রিয়াজ প্রসঙ্গে জায়েদ খান আবারও বলেন, সহযোগীদের সংখ্যা নিয়ে মামলা চলমান, কোর্টে বিচারাধীন। এটা নিয়ে কেন আন্দোলন হবে? এই ইস্যুতে যে রিয়াজ ভাই আজকে কাঁদলো, এটা দেখতে আমার খুব হাস্যকর লেগেছে। আপনি সিনিয়র মানুষ, অভিনয় করে কাঁদতেছেন কেন! কি দরকার ভাই আপনার? অথচ সহযোগী যাচাইয়ের ফর্মে কিন্তু ওনার স্বাক্ষর আছে, ওই ফাইলও আছে আমার কাছে।

আরও পড়ুন: অভিনেত্রী শিমুর বস্তাবন্দি মরদেহ উদ্ধার

জায়েদ খান বলেন, আমার আবারও বলতে চাই যে, শিল্পীদের অধিকার ও সুবিধা-অসুবিধা নিয়ে সোচ্চার হওয়ার কারণে আমাকে ও আমার কমিটি নিয়ে আরও নোংরা রাজনীতি করা হবে। মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে খুব বাজে পরিবেশ তৈরি করা হচ্ছে এফডিসির ভেতরে বলে অভিযোগ করেন জায়েদ খান।


/এসএইচ





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply