পুলিশি নিরাপত্তা চান প্রিন্স হ্যারি, ব্রিটিশ সরকারের সাথে জড়াতে পারেন আইনি লড়াইয়ে

|

ছবি: সংগৃহীত।

রাজ দায়িত্ব-কর্তব্য থেকে সরে দাঁড়ানোর পর থেকে ব্রিটিশ সরকারের পক্ষ থেকে পুলিশি নিরাপত্তা পান না ডিউক অব সাসেক্স হ্যারি ও তার স্ত্রী মেগান। তবে সম্প্রতি যুক্তরাজ্যে গিয়ে পুলিশি নিরাপত্তা নিতে ব্রিটিশ সরকারি মন্ত্রীদের সাথে আইনি লড়াইয়ের প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে জানা গেছে। খবর সিএনএন এর।

এ নিয়ে ব্রিটিশ স্বরাষ্ট্র দফতরকে কয়েক মাস আগে আইনি চিঠি পাঠিয়েছেন হ্যারি। নিজ খরচেই তিনি পুলিশি নিরাপত্তা চান যুক্তরাজ্য সফরকালে। সরকারের তরফ থেকে তা নাকচ হওয়ার পর বিচার বিভাগীয় পর্যালোচনা চাইছেন হ্যারি। এ লক্ষ্যে সরকারের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিতে শুরু করেছেন তিনি। তেমন হলে যুক্তরাজ্যে সাম্প্রতিক সময়ে রাজপরিবারের কোনো সদস্যের সঙ্গে সরকারের আইনি লড়াইয়ের এটিই প্রথম ঘটনা হবে।

হ্যারি প্রথম ২০২০ সালে নিজ খরচে ব্রিটেনে পুলিশি নিরাপত্তা পাওয়ার প্রস্তাব দিয়েছিলেন। কিন্তু সেই প্রস্তাব নাকচ হয়ে যায়।

এরপর ২০২১ সালে লন্ডনে একটি দাতব্য অনুষ্ঠান শেষে ফেরার পথে হ্যারির গাড়ি পাপারাজ্জিদের তাড়ার মুখে পড়ে। এরপর সেপ্টেম্বরে তিনি নিজ খরচে সুরক্ষা পাওয়ার বিষয়টির বিচার-বিভাগীয় পর্যালোচনার দাবি জানান। এর মধ্য দিয়ে প্রথম সরকারের বিরুদ্ধে হ্যারির আইনি ব্যবস্থার পথে হাঁটার বহিঃপ্রকাশ ঘটে।

হ্যারির আইনজীবীদের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলেসে নিজ খরচেই নিরাপত্তা বাহিনীকে নিয়োগ দিয়েছেন হ্যারি। তবে যুক্তরাজ্যে আসার পর সেই নিরাপত্তা বাহিনীর দ্বারা পরিস্থিতি মোকাবেলা সম্ভব হবে না। তাই যুক্তরাজ্যেই পুলিশি নিরাপত্তা প্রয়োজন। না হলে এটি প্রিন্স হ্যারির পরিবারের জন্য খুবই বিপজ্জনক হতে পারে।

এসজেড/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply