আন্তর্জাতিক আদালতে ফের শুরু হচ্ছে রোহিঙ্গা গণহত্যা মামলার শুনানি

|

ছবি: সংগৃহীত।

আন্তর্জাতিক বিচারিক আদালতে (আইসিজে) রোহিঙ্গা গণহত্যা মামালার শুনানি শুরু হচ্ছে চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি থেকেই। মামলার বাদিপক্ষ আফ্রিকার দেশ গাম্বিয়ার অ্যাটর্নি জেনারেল দাওদা জাল্লৌ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সংবাদ সংস্থা রয়টার্সকে।

শুক্রবার (১৪ জানুয়ারি) দাওদা জাল্লৌ বলেন, মামলার সকল কার্যক্রম পুনরায় চালু করতে এ বিষয়ে হাইব্রিড শুনানির দিন আগামী ২১ ফেব্রুয়ারি ধার্য করেছেন আন্তর্জাতিক আদালত। শুনানির দিন সংশ্লিষ্টদের একাংশ আদালতে সরাসরি উপস্থিত থাকবেন আর একাংশ যুক্ত হবেন ভার্চুয়ালি। মূলত করোনা সংক্রমণের কারণে হাইব্রিড পদ্ধতিতে শুনানির আয়োজন করা হয়েছে।

ধারণা করা হচ্ছে, শুনানিতে রোহিঙ্গাদের ওপর চালানো গণহত্যার অভিযোগের বিপক্ষে চ্যালেঞ্জ করবে জান্তা সরকার। আগেই শোনা গিয়েছিলো, এই মামলার শুনানি কার্যক্রমে মিয়ানমারের পক্ষে প্রতিনিধিত্ব করা থেকে সরিয়ে দেয়া হচ্ছে দেশটির সাবেক প্রধানমন্ত্রী অং সান সুচিকে।

২০১৯ সালের শুনানিতে তিনিই মিয়ানমারের পক্ষে প্রতিনিধিত্ব করেন। তবে বর্তমানে সামরিক অভ্যুত্থানের মাধ্যমে তার সরকারের পতন এবং ক্ষমতার পালাবদল ঘটায় বর্তমান কারাবন্দী এই নেত্রী আর শুনানিতে অংশ নিতে পারবেন না। তার বদলে আন্তর্জাতিক আদালতে দাঁড়াবেন জান্তা সরকারের উচ্চ পদস্থ কোনো কর্মকর্তা। তবে এই দায়িত্ব কে পাবেন তা এখনও জানা যায়নি। খবর ভয়েস অব আমেরিকা।

উল্লেখ্য, গাম্বিয়ার তৎকালীন অ্যাটর্নি জেনারেল ও বিচারবিষয়ক মন্ত্রী আবুবকর তামবাদু ২০১৯ সালের ১১ নভেম্বর জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে মামলাটি করেন। মিয়ানমারের বিরুদ্ধে সংখ্যালঘু মুসলিম রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে গণহত্যা চালানোর অভিযোগ আনেন তিনি।

আন্তর্জাতিক আদালতে মামলা নিষ্পত্তি হতে দীর্ঘ কয়েক বছর সময় প্রয়োজন। তাই মিয়ানমারের বিরুদ্ধে করা ওই মামলায় গাম্বিয়া মূল বিচার শুরুর আগে অন্তর্বর্তীকালীন পদক্ষেপের জন্য আইসিজের কাছে আবেদন করে। এ বিষয়ে ওই বছরের ১০ থেকে ১২ ডিসেম্বর নেদারল্যান্ডসের হেগে শুনানি হয়। শুনানিতে গণহত্যা নিয়ে মিয়ানমার স্ববিরোধী সাফাই দেয়।

এসজেড/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply