সিরাজগঞ্জের বেলকুচিতে ভোট পুনর্গণনার দাবিতে আদালতে মামলা

|

সিনিয়র রিপোর্টার, সিরাজগঞ্জ :

সিরাজগঞ্জের বেলকুচিতে গত ২৮ নভেম্বর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ভোট কারচুপির অভিযোগ উঠেছে। এর ফলে ভোট পুনর্গণনার দাবিতে আদালতে মামলা দায়ের করেছেন এক প্রার্থী। তবে এখনো হামলা- পাল্টা হামলার আতঙ্কে রয়েছে গ্রামবাসী।

তৃতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সিরাজগঞ্জের বেলকুচি উপজেলার ২নং রাজাপুর ইউনিয়ন ৯নং ওয়ার্ডের নির্বাচনের ভোট গ্রহণ শেষ হয়। এ দিন ভোট গণনা শেষে এই কেন্দ্রে ২৪৭৬ জন ভোটারের মধ্যে ১৯৪৩ ভোট প্রদান করেন ভোটাররা।

এই ভোটে ফুটবল প্রতীক মুকুল হোসেন পান ৯৯৮টি ভোট আর মোরগ প্রতীক সাইফুল ইসলাম পান ৯৩৬ ভোট। ফলাফল ঘোষণা হওয়ার পূর্বেই মোরগ প্রতীকে সাইফুল ইসলাম ও তার লোকজন ধারালো দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ফুটবল প্রতীকে প্রতিদ্বন্দী প্রার্থী মুকুল হোসেনের কর্মী সমর্থকের উপর হামলা চালায়। এসময় তারা সংখ্যালঘুদের বাড়িতেও ব্যাপক ভাঙচুর করেন।

হামলাকারীদের আঘাতে বেশ কয়েকজন গুরুতর আহত হয়। তাদের মধ্যে কয়েকজনকে সিরাজগঞ্জ ও বগুড়ায় ভর্তি করা হয়। নির্বাচন কেন্দ্রে বিশৃঙ্খলা দেখে পিজাইটিং অফিসার ফলাফল ঘোষণা না করেই সকল সরঞ্জামাদী নিয়ে দ্রুত চলে যান। পরের দিন দুপুরে উপজেলা নির্বাচন অফিস থেকে মোরগ প্রতীক সাইফুল ইসলামকে ৯৭৩ ভোট ও ফুটবল প্রতিক মুকুল হোসেনকে ৯৬১ ভোট দেখিয়ে ১২ ভোটে মোরগ প্রতিককে বিজয়ী ঘোষণা করেন।

এ বিষয়ে ফুটবল প্রতীক প্রার্থী মুকুল হোসেন বলেন, আমাকে পরিকল্পিতভাবে হারিয়ে দিয়েছে পিজাইটিং অফিসার ও রিটারনিং অফিসার। আমি সঙ্গে সঙ্গে মৌখিক ও লিখিতভাবে অভিযোগ দিলেও তারা কোনো কর্ণপাত করেনি। তাই আমি বাধ্য হয়ে ১১ জানুয়ারি আদালতে হাজির হয়ে আমার ওয়ার্ডের ভোট পুনর্গণনার জন্য জেলা নির্বাচন অফিসার, উপজেলা সমাজসেবা অফিসার এই ইউনিয়নের রিটারনিং অফিসারের দায়িত্বে থাকা ইলিয়াস হাসান শেখ, পিজাইটিং অফিসার আব্দুর রহমান, ও সহকারী পিজাইটিং অফিসারসহ ২৫ জনকে বিবাদী করে সিরাজগঞ্জ আদালতে মামলা দায়ের করি।

তিনি আরও বলেন, আশা করি বিজ্ঞ আদালত আমার মামলাটি গুরুত্বের সাথে দেখে সঠিক বিচার করে আমার প্রাপ্ত ভোট গণনা করে সঠিক ফলাফল ঘোষণা দেবে।

রিটারনিং অফিসার ইলিয়াস হোসেন বলেন, আমরা সঠিক নিয়ম মেনেই ফলাফল ঘোষণা করেছি। এখন কেউ যদি মামলা করে তাহলে তো কিছু করার নেই। সেটা আদালতে যথাযথ প্রমাণ দিতে হবে।

এব্যাপারে মোরগ প্রতীকের প্রার্থী সাইফুল ইসলাম বলেন, ভোট কেন্দ্রে পিজাইটিং অফিসার সঠিক ফলাফল ঘোষণা করেছেন। সেই ফলাফলে আমি বিজয়ী হয়েছি। আমার বিজয়ের পর ওরা পরাজিত হয়ে আমার উপর ও আমার লোকজনের উপর বারবার হামলা করেছে। আমি তাদের বিরুদ্ধে কোনো মামলা করিনি বরং তারাই আমার বিরুদ্ধে মামলা হরেছে। আর তারা যে সকল নিরীহ লোক জনকে মারধর করেছে তারাই বাদী হয়ে মামলা করেছে।

এসজেড/


সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply